এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ইসলামপুর কান্ডে শাসকদলকে চাপে ফেলতে দিল্লির দরবারে অভিযোগ জানাতে যাচ্ছে দুই ছাত্রের পরিবার

ইসলামপুর কান্ডে শাসকদলকে চাপে ফেলতে দিল্লির দরবারে অভিযোগ জানাতে যাচ্ছে দুই ছাত্রের পরিবার

ইসলামপুর ছাত্র হত্যাকান্ড নিয়ে ফের চাঞ্চল্যকর খবর প্রকাশ্যে এল। দিল্লির পথে ছুটছে মৃত ছাত্রদের পরিবার এই হত্যাকান্ডের বিচার চাইতে। আর তাঁদের সঙ্গ দিচ্ছে বিজেপি। ২১ সেপ্টেম্বরের সেই রোমহর্ষক হত্যাকান্ডের পর থেকেই পুলিশ প্রশাসন এবং রাজ্যসরকারের বিরুদ্ধে দফায় দফায় আক্রমণ শানিয়ে যাচ্ছে বিজেপি। কখনো প্রতিবাদ, বিক্ষোভ জানাচ্ছে রাস্তায় নেমে, কখনো বা জারি করেছে বাংলা জুড়ে ১২ ঘন্টার ধর্মঘট। কিছুদিন আগেই ঘটনার জন্য সিবিআই তদন্তের দাবী জানিয়ে কেন্দ্র চিঠি পাঠিয়েছে বিজেপি। তবে এবার আর অপেক্ষা করে বসে থাকা নয়। এই ন্যাক্কারজনক হত্যাকান্ডের নালিশ জানাতে সরাসরি মৃত ছাত্রদের পরিবারকে নিয়ে দিল্লি অভিযানে যাওয়ার সিদ্ধান্ত রাজ্য বিজেপি। রাষ্ট্রপতি এবং জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দ্বারস্থ হবে এবার। সোমবারই দিল্লির উদ্দেশ্যে রওয়া দেবেন তাঁরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

রাজ্য বিজেপি সূত্র থেকে জানা গিয়েছে,তবে সরাসরি অভিযোগ নিয়ে হাজির হওয়ার আগে এদিনই রাজভবনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং- এর সঙ্গে দেখা করলেন রাজ্য বিজেপি নেতারা। দলের কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহার নেতৃত্বেই রাজ্য বিজেপির একটি প্রতিনিধি দল সন্ধ্যায় দিল্লির পথে উড়েছেন। আর মুকুল রায়কে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সোমবার মৃত ছাত্রদের পরিবারকে নিয়ে জাতীয় মানবাধিকর কমিশনের দপ্তরে নিয়ে যাওয়ার। সেখানে মুকুল রায়কে সঙ্গ দেবেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এসএস আলুওয়ালিয়া। মানবাধিকার কমিশনে রাজ্যে বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানোর পর রাইসিনা হিলস্ রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করার পরিকল্পনা রয়েছে। কর্মসূচি রয়েছে রাষ্ট্রপতি ভবনে ডেপুটেশন জমা দেওয়ার। এদিন রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনারের সঙ্গে দেখা করে ফের একবার হত্যাকান্ডের জন্য সিবিআই তদন্তের আবেদন করা হবে।

উল্লেখ্য,আগেও বহুবার বাংলার নানান সমস্যাকে দিল্লির দরবারে পেশ করেছে হেভিওয়েট রাজনৈতিক নেতারা। এটা নতুন কিছু নয়। তৃণমূলই সিঙ্গুর আন্দোলনের সময় বাম সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগের ডালি সাজিয়ে দিল্লি পাড়ি দিয়েছিল। তৎকালীন তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা মুকুল রায়, শুভাপ্রসন্ন,ব্রাত্য বসুরা নন্দীগ্রামের মৃতদের পরিবারকে নিয়ে বামসরকারের উচ্ছেদ করার দাবী নিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে দরবার করেছিলেন। জাতীয় রাজনীতি কেঁপেছিল সেদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভুরি ভুরি অভিযোগের জেরে। সেই একই সমীকরণকেই তৃনমূলের বিরুদ্ধে কাজে লাগাতে চলেছে বিজেপি। লোকসভা ভোটের আগে তৃণমূলকে কোনঠাসা করার এ সুযোগ হারাতে চায় না বিজেপি। মৃত দুই ছাত্র তাপস বর্মন-রাজেশ সরকারের পরিবারকে সঠিক বিচার পাইয়ে দেওয়ার পাশাপাশি তৃণমূলের দুর্নীতিমূলক কর্মকান্ডের নমুনা জাতীয় রাজনৈতিক ক্ষেত্রে তুলে ধরার লক্ষ্যও রয়েছে রাজ্যবিজেপির। এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!