এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ঠেকাতে স্বচ্ছ ভাবমূর্তির নেতাদের সংগঠনের শীর্ষে বসানো শুরু শাসকদলের

গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ঠেকাতে স্বচ্ছ ভাবমূর্তির নেতাদের সংগঠনের শীর্ষে বসানো শুরু শাসকদলের

দলের মধ্যে গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব রুখতে নয়া কৌশল রাজ্যের শাসক দলের। একই দলের মধ্যে বিভিন্ন গোষ্ঠী তৈরী তাদের মধ্যে কারণে অকারণে মতানৈক্য সৃষ্টি করে দলের বদনাম এখন থেকে আর মেনে নেবেন না তৃণমূল কংগ্রেস। তাই এই নয়া কৌশলের কথা চিন্তা। প্রসঙ্গতঃ পূর্ব বর্ধমানের দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চলের কাঁকসা শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের নিরিখে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে। তৃণমূল কংগ্রেস দল এখন সেই কাঁকসার অঞ্চল সভাপতিদের নিয়োগ চূড়ান্ত করে ফেলতে চাইছে । কাঁকসার সাতটি অঞ্চল থেকে সভাপতি পদে একাধিক কর্মীর নামের প্রস্তাব এসেছে। জানা যাচ্ছে আগামী সোমবার জেলা নেতৃত্ব এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানা গিয়েছে। এই প্রসঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি ভি শিবদাসন বললেন, “কাঁকসা ব্লকের সাতটি অঞ্চলের সভাপতি নির্বাচনে সোমবার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে৷ প্রতিটি ব্লকের জন্য একাধিক কর্মীর নাম প্রস্তাব করেছেন স্থানীয় নেতৃত্ব৷

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কিন্তু নির্বাচিতদের পূর্ব পরিচয়, তাঁরা কে, কী কাজ করেন, সব খতিয়ে দেখেই সভাপতি পদের জন্য বাছাই করা হবে৷ বালির কারবারি, সিন্ডিকেটের সঙ্গে যুক্ত এমন লোকেদের কোনও ভাবেই দায়িত্ব দেওয়া যাবে না ৷” দলের অঞ্চল সভাপতি নিবার্চনের জন্য জেলা নেত্বের পক্ষ থেকে এদিন দুর্গাপুরে আমন্ত্রন করা হয়েছিলো স্থানীয় নেতৃত্বকে। সূত্রের খবর অনুসারে জানা যাচ্ছে সভাপতি পদের জন্য যাঁদের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে, তাঁদের অনেকের বিরুদ্ধেই একাধিক অভিযোগ রয়েছে। অঞ্চল সভাপতি পদের জন্যে যাদের নাম প্রস্তাবিত হয়েছে তাঁদের মধ্যে রয়েছে তেল কাটিং ও ট্যাঙ্কারের সিন্ডিকেটে যুক্ত একজন। আবার গোপালপুর অঞ্চলে প্রস্তাবিত তালিকায় রয়েছেন দলের স্বঘোষিত শ্রমিক সংগঠনের নেতা । তাঁর বিরুদ্ধে কারখানায় তোলা চাওয়ার অভিযোগও রয়েছে। বামুনাড়ার একটি কারখানার মালিক ওই শ্রমিক নেতার বিরুদ্ধে মহকুমাশাসকের কাছে তোলাবাজির অভিযোগ দায়ের করেছিলেন ৷মলানদিঘি অঞ্চলে প্রস্তাবিত নামের তালিকায় যিনি রয়েছেন তাঁর বিরুদ্ধে আছে জমি কেলেঙ্কারির অভিযোগ। বিদবিহার অঞ্চলে প্রস্তাবিত অঞ্চল সভাপতি আবার চিটফান্ড কেলেঙ্কারির অভিযোগে অভিযুক্ত। একই অবস্থা বনকাটি অঞ্চলেও । এখানে প্রস্তাবিত অঞ্চল সভাপতি পদে যাঁদের কথা ভাবা হয়েছে তাঁদের মধ্যে একজন সরকারি ভাবে দেওয়া জমির পাট্টা অবৈধ ভাবে বিক্রির অভিযোগে অভিযুক্ত। অভিযোগ বাংলাদেশের একাধিক অনুপ্রবেশকারীদের কাছে সেই জমি বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে ৷ত্রিলোকচন্দ্রপুর অঞ্চলেও প্রস্তাবিত নেতার বিরুদ্ধে রাজকুসুম গ্রামে জমি কেলেঙ্কারির অভিযোগ আছে ৷ এত রকমের বৈচিত্র্য মূলক অভিযোগ রয়েছে যেসব প্রস্তাবিত অঞ্চল সভাপতিদের বিরুদ্ধে তাঁদের মধ্যে থেকে দল অঞ্চল সভাপতি হিসেবে কাদের নাম চূড়ান্ত করবেন তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন দলের প্রায় কমবেশি সকল নেতাই। এমত অবস্থায় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দলীয় কর্মীর বয়ান অনুসারে , “গোষ্ঠীকোন্দলের জেরে ব্লক সভাপতি নির্বাচন করতে পারেনি দল৷ এখানে স্বচ্ছ ব্যক্তিত্বের কর্মী পাওয়াই কঠিন।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!