এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মুখ্যমন্ত্রীর সফরের পরই তীব্র গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত গলসি, ব্যাপক বোমাবাজি- কাঁপছে পুরো এলাকা!

মুখ্যমন্ত্রীর সফরের পরই তীব্র গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত গলসি, ব্যাপক বোমাবাজি- কাঁপছে পুরো এলাকা!

রাজ্যের উন্নয়ন নিয়ে শাসক দল তৃণমূলকে কটাক্ষ করতে পারবে না কেউই, তবে বর্তমানে সেই শাসকদলের সব থেকে বড় অস্বস্তির কারণ দলীয় অন্তর্কোন্দল। আর যেই কোন্দলে জেলায় জেলায় তৈরি হচ্ছে ব্যাপক সংঘর্ষ। এবারে বর্ধমানের গলসি 1 ব্লকের ঘাগড়া গ্রাম। জানা যায়, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জেলা সফরের পরেই গত শুক্র এবং শনিবার দফায় দফায় বোমাবাজির জেরে এই এলাকা উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। কিন্তু কার সাথে কার গন্ডগোলে উত্তেজনা ছড়াল?

সূত্রের খবর, দীর্ঘদিন ধরেই এই এলাকায় ব্লক তৃণমূলের সভাপতি শেখ জাকির হোসেনের সাথে এই ব্লকেরই কার্যকারী সভাপতি ওমর ফারুকের গোষ্ঠীর তীব্র বিবাদ চলছিল। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ব্লক তৃণমূলের কার্যকারী সভাপতি গোষ্ঠীর অনুগামী বলে পরিচিত শেখ আবু সালাম নিজের বাড়িতে বাইক করে ফেরার সময় হঠাৎই তাকে কিছু লোকজনেরা আটকে দেয় বলে অভিযোগ।

এমনকি এর পরে তাকে ব্যাপক মারধর করা হয়। আর রড দিয়ে মারার ফলে তার একটি পা ভেঙেও যায় বলে খবর। আর এই ঘটনায় অভিযোগের আঙুল ওঠে ব্লক তৃণমূলের সভাপতি শেখ জাকির হোসেন গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। এদিকে গুরুতর আহত অবস্থায় সেই দিনই পুরসা হাসপাতলে সেই শেখ আবু সালামকে ভর্তি করা হলে গত শনিবার সকালে সেই সালামের বাড়িতে তার চিকিৎসা নিয়ে আলোচনা হওয়ার সময় ফের সেখানে 40-50 টির মতো বোমা পরে।

আর বোমার শব্দ পেয়ে কোনরকমে একটি ঘরে আশ্রয় নেন কিছু মানুষ। তবে শেষ পর্যন্ত এই বোমার আঘাতে সেই সালামের 2 কাকা সহ জখম সাতজনকে পুরসা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা করানো হয়। অন্যদিকে এই ঘটনায় আহত সালামের দাদা শেখ ওসমান ইতিমধ্যেই গলসি থানায় একটি অভিযোগও দায়ের করেছেন।

তবে এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করার সাহস দেখাতে পারেনি পুলিশ। এদিকে এহেন গন্ডগোলের ঘটনায় এদিন ব্লক তৃণমূলের কার্যকরী সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, “ব্লক সভাপতির গোষ্ঠীর লোকেরা সব লুটেপুটে খাচ্ছে। আর তার প্রতিবাদ করতে গেলেই আমাদের মারধর করা হচ্ছে।” অন্যদিকে তার বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগকে অস্বীকার করে এই ঘটনার “গ্রাম্য বিবাদের” তত্ত্বকেই খাড়া করেছেন ব্লক তৃণমূলের সভাপতি শেখ জাকির হোসেন। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের আগে এইভাবে এলাকায় দলীয় কোন্দল প্রকাশ্যে এলে আদতে তো দলেরই ক্ষতি!

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিন এ প্রসঙ্গে গলসির তৃণমূল বিধায়ক অলোক মাঝি বলেন, “যারা গন্ডগোল করবে তারা দলের কেউ নয় বলে জানিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাই ঘাগড়াতে যারাই অশান্তি পাকিয়েছে আমরা চাই পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেই।” তবে বিধায়ক যাই বলুক না কেন গলসিতে শাসকদলের গোষ্ঠী কোন্দল যে অব্যাহত থাকবে সেই ব্যাপারে নিশ্চিত স্থানীয়রা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!