এখন পড়ছেন
হোম > আন্তর্জাতিক > ভারতে পরমাণু বোমা ফেলতে চাওয়া ব্যক্তিই ইমরান খানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হবেন? জল্পনা তুঙ্গে

ভারতে পরমাণু বোমা ফেলতে চাওয়া ব্যক্তিই ইমরান খানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হবেন? জল্পনা তুঙ্গে

পাকিস্থানের প্রতিরক্ষা তথা বিদেশ মন্ত্রী করা হতে পারে ইসলামাবাদের স্কলার শিরিন মাজারিকে। ইমরানের মন্ত্রীসভায় মাজারি জায়গা পেতে চলেছেন,এ সম্ভাবনার খবর প্রকাশ্যে আসতেই  তীব্র জল্পনা শুরু হয়েছে জাতীয় রাজনীতি সহ আন্তর্জাতিক মহলেও। উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন হেভিওয়েট রাজনীতিবিদরা। কিন্তু কেন এতো হইচই মাজারির পাকিস্থানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী হওয়ার খবরে? আসুন জেনে নেওয়া যাক বিস্তারে।

অতীতে বহুবার ভারতের বিভিন্ন জনবহুল এলাকাকে টার্গেট করে পরমাণু বোমা ফেলার সুপারিশ করেছেন শিরিন মাজারি। তাঁর ধারনা ভারতের পরমাণু অস্ত্র ভান্ডারগুলো জনবহুল অঞ্চল লাগোয়া স্থানে রয়েছে। তাই এসব জায়গায় পরমাণু হামলা চালালে সামরিক দিক থেকে ভারতকে দূর্বল করতে সুবিধা হবে। ১৯৯৯ সালে প্রকাশিত কয়েকটি নিবন্ধের সূত্র থেকে জানা গিয়েছে,ভারতের সব জনবহুল এলাকাকে তিনি পাখির চোখ করেননি। ধর্মের ভিত্তিতে ভারতের বেশ কয়েকটি প্রদেশ থেকে দূরে হটেছে তাঁর নিশানা। যেমন শিখ প্রধান রাজ্য পাঞ্জাবে তিনি পরমানু হামলা চালাবেন না বলে জানিয়েছিলেন। তেমনি পশ্চিমবঙ্গকেও তিনি টার্গেট করেননি। কারণ এই রাজ্যের সীমান্তেই বাংলাদেশ অবস্থিত বলে। কারণ হিসাবে তিনি বলেছিলেন, বাংলাদেশকে এভাবেই বার্তা দিয়েছেন তিনি যে সেই দেশের কোনো ক্ষতি চাননা বলেই পশ্চিমবঙ্গে হামলা চালানো থেকে বিরত থেকেছেন। তবে শিখদের কেন তিনি টার্গেট করলেন এ ব্যাপারে মাজারি নিজে কিছু না বললেও অনুমান করা হয়েছে খালিস্তানি জঙ্গীদের কথা মাথায় রেখেই পাঞ্জাবকে রেহাই দিতে চান তিনি। ভারতের জন্য সবথেকে আতঙ্কের বিষয় এটাই যে, তিনি মনে করেন কোনো সাধারণ যুদ্ধের পাল্টা দিতে পাকিস্থানের উচিৎ ভারতের উপর পরমানু বোমা নিক্ষেপ করা।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

অন্যদিকে,ভারতের এক পদস্থ কূটনীতিবিদের বক্তব্যে জানিয়েছেন,মাজারি পাকিস্থানের বিদেশমন্ত্রীর কুর্সিতে বসলে শুধু ভারত নয়,বিশ্বের বহু দেশেরই রাতের ঘুম উড়তে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও কূটনীতিবিদদের চিন্তা দ্বিগুন বাড়িয়েছে। এক মার্কিন কর্তা এ প্রসঙ্গে সম্প্রতি জানিয়েছেন যে  জনজীবনে ক্ষতিকারক প্রভাব রাখা ব্যক্তিকে যদি দেশের মন্ত্রীসভার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে বসানো হয় তাহলে ফল ক্ষতিকারক হওয়ার ১০০% সম্ভাবনা রয়েছে।

উল্লেখ্য,১৯৬৪ সালে বিখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক স্ট্যানলি কুব্রিক ড. স্ট্রেঞ্জলাভ ছবিটি তৈরি করেছিলেন। ছবিটির প্রধান চরিত্র একজন আমেরিকান এয়ারফোর্স জেনারেল। ছবিটিতে দেখানো হয়েছে উপরিমহলের কর্তাদের না জানিয়ে তিনি রাশিয়ার উপর পরমানু হামলা চালানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন। এই চরিত্রটির সঙ্গে সাদৃশ্য থাকায় ভারত ও মার্কিন পরমানু অস্ত্র বিশেষজ্ঞরা মাজারিকে পাকিস্থানের ড. স্ট্রেঞ্জলাভ বলো থাকেন। এই ব্যক্তিটি যদি পাক প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্বে আসেন তাহলে এশিয়ার দেশগুলোর পরিনতি কী হতে পারে,তা কল্পনা করে এখন থেকেই ঘাম ছুটছে একাধিক দেশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!