এখন পড়ছেন
হোম > আন্তর্জাতিক > পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান প্রমাণ চাইতেই পুলওয়ামা হামলায় পাক সেনাবাহিনীর যোগের প্রমাণ ছুঁড়ে মারল ভারত

পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান প্রমাণ চাইতেই পুলওয়ামা হামলায় পাক সেনাবাহিনীর যোগের প্রমাণ ছুঁড়ে মারল ভারত

গত 14 ই ফেব্রুয়ারি জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় পাক মদতপুষ্ট জঙ্গী সংগঠনের পক্ষ থেকে এক নৃশংস হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন ভারতের প্রায় 42 জন জওয়ান। আর এই ঘটনায় পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বদলার রাস্তায় হাঁটতেই হবে এই দাবি উঠেছে গোটা ভারতে। এমনকি সেনাবাহিনীর রক্তের মূল্য যে পাকিস্তানকে চোকাতে হবে সেই নিয়ে পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দিতে দেখা গেছে ভারতকেও।

আর এহেন একটা পরিস্থিতিতে যখন ভারত পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বদলার রাস্তায় হাঁটতে ব্যস্ত, ঠিক তখনই গতকাল এই ব্যাপারে মুখ ফুলে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান পাকিস্তানের এই নৃশংস জঙ্গি হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার জন্য ভারতের কাছে প্রমাণ চেয়েছেন। আর এবারে তাই পুলওয়ামার এই ঘটনায় যে পাকিস্তান জড়িত তা প্রমাণ করতে ইতিমধ্যেই একাধিক প্রমাণ নিয়ে পাকিস্তানকে জবাব দিতেও তৈরি হচ্ছে ভারত।

সূত্রের খবর, জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার তরফে ইতিমধ্যেই প্রাথমিকভাবে কিছু তথ্য প্রমাণ জোগাড় করা হয়েছে। আর যেখানে পাক জঙ্গিদের দ্বারা পুলওয়ামার এই আক্রমণের পেছনে যে পাকিস্তানের মদত ছিল সেই ব্যাপারটি স্পষ্ট হয়েছে বলে খবর।

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে এই বিস্ফোরণে ব্যবহৃত আরডিএক্স এবং পুলওয়ামা হামলার আগে ও পরে পাকিস্তান থেকে আসা বেশ কয়েকটি ফোনকল হাতে পেয়েছে গোয়েন্দারা। এদিকে এই বিস্ফোরণের পরে এলাকায় বৃষ্টি হওয়ার কারণে বেশ কিছু প্রমাণ মুছে গেলেও তদন্তকারীদের একাংশের মতে, জ্যারিকেনগুলি মারুতি গাড়িতে মজুদ করা হয়েছিল। আর এর মধ্যে বেশিরভাগ ধ্বংস হয়ে গেলেও একটি জ্যারিকেনের অংশ ঘটনাস্থল থেকে পাওয়া গিয়েছে। আর যা দেখেই মনে করা হচ্ছে যে এক একটিতে মোট 30 কেজির মত আরডিএক্স মজুত করা হয়েছিল।

অন্যদিকে ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু ধাতব পাতও উদ্ধার করা হয়েছে। জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে প্রথমে ওই পাতগুলিকে গাড়ির চেসিস নম্বর মনে করে তদন্ত শুরু হলেও পরে দেখা যায় যে ওই নম্বরের গাড়ির মালিকের সঙ্গে পুলওয়ামা হামলার কোনো যোগ নেই।

আর এইখানেই গোয়েন্দাদের একাংশের অনুমান, জঙ্গিরা একটি লাল রঙের গাড়িতে চেপে এসে কনভয়ের পঞ্চম গাড়িতে ধাক্কা দিয়েছিল। তবে আরডিএক্সের গুণমান এবং তার ব্যবহারের কৌশল দেখে তদন্তকারীরা একপ্রকার নিশ্চিত যে এই বিস্ফোরণে পাকিস্তানের যোগ রয়েছে।

পাশাপাশি ফোন কলও এখন মোক্ষম হাতিয়ার হতে চলেছে গোয়েন্দাদের। কেননা এই ফোন কলের মাধ্যমে পুলওয়ামার আগে এবং পরে কাদের কাদের কাছে ফোন এসেছিল সেই ব্যাপারে রহস্য উদঘাটিত করে পাকিস্তানই যে এই হামলায় জড়িত তা প্রমাণ করতে তৎপর ভারত।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!