এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > হুগলির লড়াই কঠিন জেনেও প্রচারেই শাসকদলের সঙ্গে সমানে টক্কর দিচ্ছেন লকেট চ্যাটার্জি

হুগলির লড়াই কঠিন জেনেও প্রচারেই শাসকদলের সঙ্গে সমানে টক্কর দিচ্ছেন লকেট চ্যাটার্জি

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে এই রাজ্যে মূল লড়াই শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস বনাম বিরোধী দল বিজেপির মধ্যে। প্রায় প্রতি কেন্দ্রেই একে অপরের বিরুদ্ধে প্রচারে ঝড় তুলতে রীতিমতো মরিয়া হয়ে উঠেছে দু’পক্ষ। আর সেই রকমই শাসক-বিরোধী দুই দলের প্রচারে রীতিমত ঝড় উঠতে দেখা গেল হুগলি লোকসভা কেন্দ্রে।

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার ধনেখালিতে যখন জোর প্রচার এবং জনসংযোগে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন এখানকার বিদায় সাংসদ তথা তৃণমূল প্রার্থী রত্না দে নাগ, ঠিক তখনই গুড়াপ এলাকায় কখনও মন্দিরে গিয়ে পুজো দিয়ে, তো কখনও বা শহীদ বেদীতে মালা দিয়ে সাধারণ মানুষের অনেক কাছাকাছি পৌঁছতে দেখা গেল বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়কে।

সূত্রের খবর, সোমবার সকালে হুগলি লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী রত্না দে নাগ ধোনেখালিতে রোড শো করেন। যেখানে তৃণমূল প্রার্থীর সফরসাথী হিসেবে দেখা গেছে রাজ্যের শাসকদলের বিধায়ক অসীমা পাত্রকে। আর এই জনসংযোগের মাঝেই আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে মানুষ আবার এই কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী রত্না দে নাগকেই ভোট দেবেন বলে জানান অসীমা পাত্র।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

বিজেপি প্রার্থীকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “সেলিব্রিটি নয়, এখানকার প্রত্যেকটি পরিবারের একজন সদস্য এই রত্না দে নাগ। প্রতিশ্রুতির বন্যা বইয়ে মানুষকে ভুল বুঝিয়ে আমরা ভোট প্রার্থনা করি না। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে ধনেখালি তথা হুগলি লোকসভা কেন্দ্রের প্রত্যেকটি এলাকাতে উন্নয়ন হয়েছে। যারা ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করে তাদের বিরুদ্ধে উন্নয়নই আমাদের একমাত্র অস্ত্র।

আগামী ভোটে উন্নয়নের মধ্যে দিয়েই বিরোধীদের কুৎসার জবাব আমরা দেব।” অন্যদিকে এই কেন্দ্র থেকে জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসের সুর শোনা গেছে হুগলি লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী রত্না দে নাগের গলাতেও। এদিকে তৃনমূল প্রার্থী রত্না দে নাগ জোর প্রচার চালাচ্ছেন, ঠিক তখনই হুগলি লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায় নিজের দলীয় কর্মী সমর্থকদের নিয়ে গুড়াপ বাজার থেকে হেঁটে বিশালাক্ষী মন্দির ও জগন্নাথ মন্দিরে পুজো দিয়ে জনসংযোগে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

কখনও তাকে মহিলাদের কাছে গিয়ে মিশে যেতে, আবার কখনও বা কোনো বাচ্চাকে কোলে তুলে নিতে দেখা যায়। কিন্তু জয়ের ব্যাপারে তারা কতটা আশাবাদী? এদিন এই প্রসঙ্গে হুগলি জেলা বিজেপির সাংগঠনিক সভাপতি সুবীর নাগ বলেন, “রত্নাদির প্রতি আমরা শ্রদ্ধাশীল। কিন্তু ওনার দলের কর্মীদের দৌলতে এলাকায় সন্ত্রাস, তোলাবাজি বেড়েই চলেছে। মানুষ তাই সন্ত্রাস থেকে বাঁচতে এবার বিজেপিকেই ভোট দেবে।”

এদিকে তৃণমূল এবং বিজেপি যখন জোর প্রচার চালাচ্ছে, ঠিক তখনই প্রার্থী ঘোষণা হয়ে গেলেও সেই ভাবে প্রচারে নামতে দেখা যায়নি কংগ্রেসকে। তবে হুগলি লোকসভা কেন্দ্রের বাম প্রার্থী প্রদীপ সাহাকে এদিন নিজের এলাকায় প্রচার করতে দেখা যায়। আর বামেদের এই প্রচারে উপস্থিত হয়ে হুগলি জেলা সিপিএমের সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য স্নেহাশিস রায় বলেন, “হুগলি জেলায় সব থেকে বেশি বিরোধীরা আক্রান্ত হয়েছে। মানুষ আতঙ্কিত। তাই আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে হুগলি জেলার তিনটি লোকসভা কেন্দ্রেই বাম প্রার্থীরা জয়লাভ করবেন।”

সব মিলিয়ে এবার হুগলি লোকসভা কেন্দ্রকে পাখির চোখ করে তৃণমূল, বিজেপি এবং কংগ্রেস প্রার্থীদের প্রচারে জমে উঠেছে সেখানকার রাজনীতি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!