এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > পুরুলিয়ায় দিলীপ ঘোষের পা পড়তেই তৃণমূলের একঝাঁক হেভিওয়েটের গেরুয়া শিবিরে যোগদান

পুরুলিয়ায় দিলীপ ঘোষের পা পড়তেই তৃণমূলের একঝাঁক হেভিওয়েটের গেরুয়া শিবিরে যোগদান

এই মুহূর্তে রাজ্য-রাজনীতিতে খবরের শিরোনামে পুরুলিয়া জেলা। প্রথমে পঞ্চায়েত নির্বাচনে রাজ্যজুড়ে ঘাসফুল ঝড়ের মাঝেও পদ্মশিবিরের দুর্দান্ত ফলাফল, আর তারপরে তিনদিনের মধ্যে দুই বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার – ফলে বিজেপি শীর্ষনেতাদের ঘাঁটি গেড়ে পুরুলিয়ায় বসে থাকা ও আন্দোলনের ঢেউ তোলা – এইসব নিয়েই সরগরম পুরুলিয়া। আর আজ এইসবের মধ্যেই লাল মাটির দেশে পা পড়ল গেরুয়া শিবিরের বঙ্গ-ব্রিগেডের সেনাপতি দিলীপ ঘোষের। তাঁর পদার্পনের জন্যই যেন অপেক্ষা করে ছিল ছৌ-নাচের দেশ। তাঁর হাত ধরে তৃণমূল কংগ্রেসে ও কংগ্রেসের একঝাঁক হেভিওয়েট নেতা আজ নাম লেখালেন গেরুয়া শিবিরে।

এঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সম্পাদক বিষ্ণুচরন মাহাতা, বর্তমান কংগ্রেস কাউন্সিলর মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরি, তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন কাউন্সিলর দিনেশ শুক্লা, তৃণমূল কংগ্রেসের রঘুনাথপুর বিধানসভার প্রাক্তন প্রার্থী নবরাজ বাউরী, বিশিষ্ট সমাজসেবী বিজয়কৃষ্ণ মাহান্ত, স্থানীয় দাপুটে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সুব্রত রজক, বিনয় রজক, পার্থ রজক ও তাঁদের ১,০০০ অনুগামী। অন্যদিকে, মানবাজারের পিডিএসের জেলা সম্পাদক তীর্থঙ্কর দে প্রায় ২০০ জন অনুগামী নিয়ে যোগদেন বিজেপিতে। এছাড়াও আদ্রা চার্চ স্কুলের শিক্ষিকা লাডলি যাদব এবং সমাজসেবী চন্দন কর্মকার প্রায় ২৫০ জন অনুগামী নিয়ে বিজেপিতে যোগদেন। আর রাজ্য সভাপতির হাত ধরে এই বিপুল সংখ্যক যোগদানে প্রচন্ড উৎসাহী স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ত্ব। বিশেষ করে বিষ্ণুচরনবাবুর যোগদানে খুশির অন্ত নেই গেরুয়া শিবিরের – কেননা তিনি একদম প্রথম দিকের তৃণমূল কর্মী ও স্থানীয় হেভিওয়েট নেতা। পুরুলিয়া বিজেপি নেতৃত্ত্বের দাবি, পুরুলিয়া জেলা জুড়ে তৃণমূল কংগ্রেস ও অন্যান্য দল ছেড়ে বিজেপিতে আসার জন্য প্রচুর আবেদন জমা পড়ছে – যতদিন যাবে তত তীব্র ভাঙন দেখা যাবে জেলা জুড়ে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!