এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে আর লড়তে চাইছেন না এই হেভিওয়েট তৃণমূল সাংসদ – নাছোড় খোদ দলনেত্রী

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে আর লড়তে চাইছেন না এই হেভিওয়েট তৃণমূল সাংসদ – নাছোড় খোদ দলনেত্রী


রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসে এই মুহূর্তে অন্যতম সম্মানীয় ও রাশভারী নেতার নাম সুব্রত বক্সি। তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ও বিশ্বাসযোগ্য সৈনিক হিসাবেই তিনি পরিচিত। ২০১১ সালে যখন রাজ্যে পরিবর্তনের হাওয়া উঠেছিল – তখন ভবানীপুর বিধানসভা কেন্দ্রের সুব্রতবাবুকে টিকিট দেন মমতা ব্যানার্জি।

যাতে, যদি সরকার গড়তে পারে তৃণমূল কংগ্রেস তাহলে ওই কেন্দ্র থেকে সুব্রতবাবু পদত্যাগ করবেন এবং মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ওই আসনে উপনির্বাচনে জিতে আসবেন। কেননা ভবানীপুর আসন এককথায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভদ্রাসন।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর বাস্তবেও তাই হয়, সুব্রতবাবুর ছেড়ে যাওয়া ভবানীপুর আসন থেকেই উপনির্বাচনে জেতেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর প্রতিদানে নিজের দক্ষিণ কলকাতা লোকসভা আসন থেকে উপনির্বাচনে জিতিয়ে সুব্রতবাবুকে লোকসভায় পাঠান তিনি। এরপর ২০১৪ সালেও, ওই কেন্দ্র থেকেই সুব্রতবাবুকে আবারো টিকিট দেন তৃণমূল নেত্রী এবং যথারীতি সুব্রতবাবু জিতেও যান।

কিন্তু, বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা যাচ্ছে সুব্রতবাবু আসন্ন ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে আর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে উৎসুক নন। আর এর পিছনে নাকি মূল কারণ তাঁর শারীরিক অসুস্থতা। তবে, সোশ্যাল মিডিয়ায় তীব্র গুঞ্জন সুব্রতবাবুর এই সিদ্ধান্তের পিছনে নাকি ‘অন্য কারণ’ আছে। যদিও সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকেই জানা যাচ্ছে – দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তো বটেই বর্তমানে দলের অঘোষিত দুনম্বর নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও নাকি চান সুব্রতবাবু আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করুন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!