এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > অবৈধ নির্মাণে জড়িত হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা, আদিবাসী বিক্ষোভে উত্তাল মালদা

অবৈধ নির্মাণে জড়িত হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা, আদিবাসী বিক্ষোভে উত্তাল মালদা

তিনি মালদা জেলা পরিষদের প্রাক্তন সভাধিপতি। বর্তমানে মৎস্য কর্মাধ্যক্ষও বটে। আর এহেন দাপুটে তৃণমূল কংগ্রেসের নেত্রীর বাড়ি তৈরিকে ঘিরে এবার তীব্র উত্তেজনার সৃষ্টি হল। জানা যায়, শনিবার দুপুরে তৃণমূল নেত্রী সরলা মুর্মুর বাড়ি তৈরিকে ঘিরে 34 নম্বর জাতীয় সড়কের ওপর পুরাতন মালদহ ব্লকের আটমাইল আদিবাসী সংগঠন ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টির পক্ষ থেকে বিক্ষোভ দেখানো হয়।

এদিন এই সংগঠনের কর্মী সমর্থকরা তীর-ধনুক ও নানা অস্ত্রশস্ত্র হাতে দীর্ঘক্ষন পথ অবরোধ করে রাখেন। যার ফলে সেই 34 নম্বর জাতীয় সড়কে ব্যাপক যানজটের শিকার হন সাধারণ মানুষ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

পরে অবশ্য পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি আয়ত্তে আনে। কিন্তু কেন আদিবাসী সংগঠনের পক্ষ থেকে মালদহ জেলা পরিষদের প্রাক্তন সভাপতি তথা বর্তমান মৎস্য কর্মাধ্যক্ষ তৃনমূল কংগ্রেস নেত্রী সরলা মুর্মুর বাড়ি তৈরিকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ দেখানো হল! জানা যায়, এই পুরাতন মালদহ ব্লকের ভাবুক গ্রাম পঞ্চায়েতের আটমাইল এলাকায় 34 নম্বর জাতীয় সড়কের কিছুটা দূরে একটি 7 শতক জমি আছে।

বেশ কয়েক বছর আগে মালদহ জেলা পরিষদের প্রাক্তন সভাধিপতি সরলা মুর্মু এই জমিটি কেনেন। যেখানে প্রায় ছয় জনের অংশীদারিত্ব ছিল।এদিকে এই জমির অংশীদার ছানি হাসদাকে এই ব্যাপারে কিছু না জানানোয় তিনি তার জমি খুঁজে না পাওয়ায় সেই আদিবাসী সংগঠন ঝাড়খন্ড দিশম পার্টির দ্বারস্থ হলে সেই সংগঠনের পক্ষ থেকে এই ব্যাপারে আন্দোলনে নামার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। আর এদিন সরলা মুর্মুর বাড়ি তৈরীর সময় ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টির পক্ষ থেকে বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হলে, সেই বাড়ি তৈরীর কাজ বন্ধ হয়ে যায়।

এদিন এই প্রসঙ্গে পুরাতন মালদহ ব্লকের জেডিপি নেতা সুনারাম সরেন বলেন, “তৃণমূল নেত্রী সরলা মুর্মু একটি জমি কিনেছিলেন, যাতে 6 জন অংশীদার রয়েছেন। কিন্তু তাদের মধ্যে একজনের অংশ তিনি বুঝিয়ে দেননি। নিজের ক্ষমতাবলে সরলাদেবী বাড়ি তৈরির কাজ করছিলেন। তাই আমরা পথ অবরোধ করে তাতে বাধা দিয়েছি।” কিন্তু তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ কি সত্যি!

এদিন এই প্রসঙ্গে সেই সরলা মুর্মু বলেন, “আটমাইল এলাকায় বৈধ কাগজপত্র নিয়ে কাজ শুরু করেছি। জেডিপি কাজে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেছে। ওরা যে অভিযোগ করছে, তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। বাড়ি তৈরীর বদলে কিছু টাকা দেওয়ার চাপ ছিল। আর তা না দেওয়াতেই এই ধরনের আন্দোলন হচ্ছে। বিষয়টা প্রশাসনকে জানিয়েছি।” সবমিলিয়ে এবার অবৈধ নির্মাণে হেভিওয়েট তৃনমূল নেত্রী জড়িত থাকায় আদিবাসী বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠল মালদহ।

Top
error: Content is protected !!