এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিধাননগরের মন্ত্রী-মেয়রের অনুষ্ঠানে ‘অসম্মানিত’ বোধ করে এলেন না হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা, বাড়ছে জল্পনা

বিধাননগরের মন্ত্রী-মেয়রের অনুষ্ঠানে ‘অসম্মানিত’ বোধ করে এলেন না হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা, বাড়ছে জল্পনা



এবার সল্টলেক সেন্ট্রাল পার্ক মেলা প্রাঙ্গণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত থেকেও এলেন না শাসকদলের হেভিওয়েট নেতা। আর যে ঘটনায় চরম চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল বিধাননগর পৌরসভায়। সূত্রের খবর, এদিন এই বিধাননগরের মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী এবং কলকাতা পৌরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম, বিধান নগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত, রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, পূর্ণেন্দু বসু, সাধন পান্ডে ও অন্যান্যরা।

আরও জানা যায়, এদিনের এই অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত দেখা গেল বিধাননগর পৌরসভার ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়, চেয়ারপার্সন কৃষ্ণা চক্রবর্তী সহ এই পৌরসভার বেশ কয়েকজন মেয়র পারিষদ, বোরো চেয়ারম্যান ও কাউন্সিলরদের। কেন তারা আসেননি? এদিন এই প্রসঙ্গে বিধান নগর পৌরসভার মেয়র সব্যসাচী দত্ত কে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “সবাইকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কেন তারা আসেননি তা তারাই বলতে পারবেন।”

এদিকে অনুপস্থিত হওয়ার কারণ হিসেবে বিধান নগরের ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায় বলেন, “আমরা অসম্মানিত বোধ করেছি। কেউ কেউ চাইছেন না যে আমরা এই মেলায় যাই। এমনকি মেলায় আমন্ত্রণ পত্রের কার্ডে ডেপুটি মেয়র হিসেবে আমার, চেয়ারপার্সন, স্থানীয় সাংসদ, স্থানীয় বিধায়ক কারওর নাম নেই। শুধুমাত্র সব্যসাচী দত্ত, মেলা কমিটির সম্পাদক দেবাশিস জানার নাম রয়েছে।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্য দিকে ব্যস্ততার কারণে তিনি এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারেননি বলে জানান সুজিত বসু। এদিকে উপস্থিতি ও অনুপস্থিতি নিয়ে যখন জোর তরজা চলছে এখানকার হেভিওয়েট তৃণমূল নেতাদের মধ্যে, ঠিক তখনই এই অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে ফের বিরোধীদের একহাত নিলেন রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

তিনি বলেন, “প্রায়ই শুনতে হয় যে এত মেলা উৎসব কেন হচ্ছে!” আসলে এই মেলা ও উৎসবের জেরে মানুষ অনেক জিনিস কিনছেন। মানুষের আয় এখন তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এই রাজ্যে মানুষের রোজকার যতটা বেড়েছে, কোথাও আর এমন বাড়েনি।”

অন্যদিকে বিগত বামফ্রন্ট আমলে এই মেলা, খেলার নাম করে অর্থের প্রচুর অপচয় হত বলেও এদিন বিগত বাম সরকারের উদ্দেশ্যে কটাক্ষ ছুড়ে দেন ফিরহাদ হাকিম। এদিকে এখন সরকারের উদ্যোগে এই মেলাগুলোকে এদিন মানুষের মেলা বলে অভিহিত করেন রাজ্যের মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু।

আর এরই মাঝে এই অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে বিধান নগর মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মেয়র সব্যসাচী দত্ত বলেন যে, “এই বিধান নগর পৌরসভা খুব তাড়াতাড়ি তাদের বকেয়া টাকা পাবে।” যদিওবা এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাননি রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। সব মিলিয়ে বিধান নগরের মেলা অনুষ্ঠিত হলেও সেই মেলায় অনুপস্থিত থাকলেন শাসকদলেরই একাধিক নেতা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!