এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > আসরে স্বয়ং অমিত শাহ – দুস্মন্তকে দূরে রেখেই হরিয়ানাতে সরকার গেরুয়া শিবিরের?

আসরে স্বয়ং অমিত শাহ – দুস্মন্তকে দূরে রেখেই হরিয়ানাতে সরকার গেরুয়া শিবিরের?

আবকি বার, ৭৫ পার – এর হুঙ্কার ছেড়ে, কার্যত ভরাডুবি হয়েছে হরিয়ানার বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খাট্টারের। সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় ৪৬ বিধায়ক জিতিয়ে আনতে পারেননি তিনি। একসময় তো বিজেপি ও কংগ্রেস দুজনেই ৩৫ চলে যাওয়ায় – মনে করা হচ্ছিল দুষ্মন্ত চৌটালাই হতে চলেছেন কিং মেকার!

কিন্তু, দুপুরের পর থেকেই দ্রুত বদলাতে থাকে চিত্র। দলীয়স্তরে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে অস্বস্তি করা হয় যে ট্রেন্ড আসছে, তাতে বিজেপি ৪০ আসন পেতে চলেছে। অর্থাৎ সরকার গঠনের জন্য দরকার ৬ বিধায়কের সমর্থন। সেই পরিপ্রেক্ষিতে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছিল বিজেপি-জেজেপি জোট সরকার হতে চলেছে হরিয়ানায়।

আর সেই জল্পনাকে আরও উস্কে দিয়ে, জেজেপি সুপ্রিমো দুষ্মন্ত চৌটালা দিল্লি রওনা হয়ে যান। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা, তিনি নিজের জেলবন্দি বাবা অজয় চৌটালার সঙ্গে শলা-পরামর্শ করে, তবেই বিজেপির সঙ্গে আলোচনায় বসবেন। কিন্তু, এতক্ষন অপেক্ষা করতে রাজি ছিলেন না অমিত শাহ। হরিয়ানা দখলে আনতে তিনি নিজেই আসরে নেমে পড়েন।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এবারের হরিয়ানা বিধানসভা নির্বাচনে ৭ জন নির্দল বিধায়ক জয়লাভ করেছেন। সূত্রের খবর, এঁদের মধ্যে অন্তত ৪ জন বিজেপিতে যোগদান করতে চলেছেন। কেননা, এঁরা সকলেই বিজেপির টিকিট প্রত্যাশী ছিলেন, টিকিট না পেয়েই এঁরা নির্দল হিসাবে দাঁড়ান এবং যেতেন। অর্থাৎ, এই ৪ নির্দলের সমর্থন নিয়ে বিজেপি পৌঁছে যাচ্ছে ৪৪-এ।

এছাড়াও, হরিয়ানা লোকহিত পার্টির টিকিটে একমাত্র বিধায়ক হিসাবে জয়ী হয়েছেন গোপাল কান্ডা। যিনি ইতিমধ্যেই দিল্লির জন্য রওনা হয়ে গেছেন। তাঁর ভাই দাবি করেছেন, যে ইতিমধ্যেই অমিত শাহের সঙ্গে তাঁর কথা হয়ে গেছে। তিনি বিজেপিকেই সমর্থন করছেন। প্রয়োজনে দলবদল করে বিজেপিতে যোগও দেবেন।

আর তাই সবমিলিয়ে বিজেপি কিন্তু ইতিমধ্যেই ৪৫ জন বিধায়ক নিজেদের দিকে এনে ফেলেছে। এছাড়াও আরও ৩ জন নির্দল বিধায়ক এখনও আছেন। আরও আছেন আইএনএলডির একমাত্র বিধায়ক হিসাবে অভয় সিং চৌটালা। সুতরাং, সবমিলিয়ে বলাই যায়, দুষ্মন্ত চৌটালাকে বাদ দিয়েই হারিয়ানাতে সরকার গঠনের চাবিকাঠি জোগাড় করে ফেললেন অমিত শাহ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!