এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বসিরহাট কাণ্ডে তৃণমূল নেতার গ্রেপ্তারি চেয়ে ফেসবুকে পোস্ট করে গ্রেপ্তার শিক্ষক

বসিরহাট কাণ্ডে তৃণমূল নেতার গ্রেপ্তারি চেয়ে ফেসবুকে পোস্ট করে গ্রেপ্তার শিক্ষক

মাত্র কিছুদিন আগেই বসিরহাটে রাজনৈতিক হানাহানিতে উত্তাল হয়ে উঠেছিল রাজ্য-রাজনীতি। বিরোধীদের অভিযোগ ছিল, সেখানকার বিজেপি কর্মীদের নৃশংসভাবে চোখে বা মাথায় গুলি করে হত্যা করেছে শাসকদল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। আর এই ঘটনার পিছনে মূল মস্তিস্ক হল, স্থানীয় তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহান। তাঁর গ্রেপ্তারির দাবিতে সরব হয়ে ওঠেন প্রথম সারির বিরোধী নেতারা। বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের দাবি, তিনি নাকি বাংলাদেশে পালিয়ে গেছেন।

যদিও ঘটনার পিছনে শাসকদলের কারোর জড়িত থাকার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব। আর এবার সেই শেখ শাহজাহানের গ্রেপ্তার চেয়ে ফেসবুকে পোস্ট করে গ্রেপ্তার হলেন এক স্কুল শিক্ষক। সূত্রের খবর, হাওড়ার ডোমজুড়ের বাসিন্দা ও লোহাই সম্মিলনী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক হরিদাস মাখাল নিজের ফেসবুক ওয়ালে শেখ শাহজাহানের গ্রেপ্তার চেয়ে জনমত গড়ে তুলতে পোস্ট করেন।

কিন্তু সন্দেশখালি থানার পুলিশ ধর্মীয় উস্কানিমূলক পোস্ট করার অভিযোগে হরিদাসবাবুকে আরামবাগ থেকে গ্রেপ্তার করে ও ডোমজুড় থানায় নিয়ে আসে। সমগ্র ঘটনায় রীতিমত ক্ষুব্ধ শিক্ষক সমাজ। এই ঘটনায় বিজেপির শিক্ষক সংগঠন বিজেপি টিচার্স সেল হরিদাসবাবুর পাশে দাঁড়িয়ে, সমগ্র ঘটনার পিছনে রাজনৈতিক চক্রান্ত দেখছে। ঘটনার দিনেই, বিজেপি শিক্ষক সেলের ডোমজুড় বিধানসভার ইনচার্জ পলাশ মন্ডলের নেতৃত্বে হরিদাসবাবুর গ্রেফতারের প্রতিবাদে ডোমজুড় থানায় বিক্ষোভ দেখানো হয়।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এমনকি, বিজেপি শিক্ষক সেলের রাজ্য আহ্বায়ক দীপল বিশ্বাসের নেতৃত্বে গত রবিবার দিন কলকাতায় বিজেপির রাজ্য অফিস থেকে ‘প্রতিবাদী শিক্ষক’ হরিদাস মাখালের গ্রেফতারের প্রতিবাদে এবং তাঁর মুক্তির দাবিতে এক মিছিল সংগঠিত করেন। দীপলবাবুর অনুরোধে বিজেপি লিগাল সেলের আইনজীবীরা হরিদাসবাবুর মুক্তির আবেদন জানান ও এই ব্যাপারে তাঁকে সবরকম আইনি সাহায্য করার কথা জানান। অবশেষে গতকাল হরিদাসবাবু জামিনে মুক্ত হন।

ফেসবুক পোস্টের পরিপ্রেক্ষিতে গ্রেপ্তার হলেও, নিজের জায়গা থেকে একটুও সরতে রাজি নন হরিদাসবাবু। জামিনে মুক্ত হওয়ার পর তিনি স্পষ্ট জানান, বর্তমান তৃণমূল সরকার মৌলবাদীদের সরকার। মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলেই, তাকে অন্যায় ভাবে জেলে পুড়ে দেওয়া হচ্ছে। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে গিয়ে তাঁর পাশে দাঁড়িয়ে তাঁকে জেল থেকে মুক্ত করানোর জন্য বিজেপি শিক্ষক সেলকে ধন্যবাদ জানান হরিদাসবাবু।

এদিকে সামগ্রিক ঘটনায় রীতিমত ক্ষুব্ধ দীপলবাবু জানান, বর্তমান তৃণমূল কংগ্রেস সরকার শিক্ষকদের প্রতি ক্রমশ প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে উঠেছে। অন্যায়ের প্রতিবাদ করলে, হয় মিথ্যা কেস দিয়ে জেলে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে নতুবা দূরবর্তী জেলায় বদলি করে দেওয়া হচ্ছে। রাজ্য সরকার এই জঘন্য খেলা বন্ধ না করলে আমরা বিজেপি শিক্ষক সেলের পক্ষ থেকে জেলায় জেলায় আন্দোলন সংগঠিত করব এবং প্রয়োজনে নবান্ন অভিযানও করব।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!