এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > পার্টি অফিসের পর এবার সরকারি কর্মীদের অফিস দখলেরও অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

পার্টি অফিসের পর এবার সরকারি কর্মীদের অফিস দখলেরও অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

রাজ্যের প্রাক্তন শাসক দল সিপিএম’র দলীয় কার্যালয় দখলের অভিযোগ উঠলো বর্তমান শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। উত্তরবঙ্গের কুমারগ্রাম ব্লকের কামাখ্যাগুড়িতে সিপিএমের সরকারি কর্মচারী সংগঠন কো-অর্ডিনেশন কমিটির অফিস দখলের জন্যে অভিযুক্ত ঠাহর করা হলো ঘাস ফুল শিবিরকে। উল্লেখ্য কামাখ্যাগুড়িতে জেলা পরিষদের ডাক বাংলোর উল্টো দিকেই কো-অর্ডিনেশন কমিটির অফিসটি অবস্থত। অভিযোগ এদিন রাতে তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা ও কর্মীরা কো-অর্ডিনেশন কমিটির কার্যালয়ে তালা লাগিয়ে দলের পতাকা লাগিয়ে দেয়।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই মাখ্যাগুড়িতে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। যদিও তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এই অভিযোগ সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার করা হয়েছে। এদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে কো-অর্ডিনেশন কমিটির আলিপুরদুয়ার জেলা সভাপতি বিষ্ণুপদ চক্রবর্তী বললেন, “কামাখ্যাগুড়িতে আমাদের সংগঠনের ওই অফিসে বসে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত আমাদের লোকজন কাজকর্ম করছিল। পরে রাতের দিকে আমরা জানতে পারি তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা আমাদের ওই অফিসে তালা লাগিয়ে দিয়ে তাদের দলীয় ঝান্ডা, ব্যানার লাগিয়ে দিয়েছে। আমরা রাতেই অফিস দখলের বিষয়টি কামাখ্যাগুড়ি পুলিস আউটপোস্টে জানিয়েছি। কিন্তু পুলিস কোনও পদক্ষেপ করেনি। তারা তৃণমূলের হয়ে কাজ করছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এবিষয়ে পুলিস ব্যবস্থা না নিলে জেলাজুড়ে সংগঠন বড়সড় আন্দোলনে নামবে।”

অন্যদিকে তৃণমূলের জেলা সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব নার্জিনারী এই ঘটনা সম্পর্কে বললেন, “অভিযোগ পুরোপুরি মিথ্যা। শুক্রবার বিকালে কামাখ্যাগুড়িতে জেলা পরিষদের ডাক বাংলোর সামনে ২১ জুলাই শহিদ দিবসের প্রস্তুতি হিসাবে দলের যুব সদস্যরা ব্যানার ঝান্ডা লাগাচ্ছিল। তাতে হয় তো ভুল করে কো-অর্ডিনেশন কমিটির অফিসের দেওয়ালেও কয়েকটি ঝান্ডা লাগানো হতে পারে। কারণ অফিসটি দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ। তাই বিরোধী সরকারি কর্মচারী সংগঠনের অফিস দখলের প্রশ্নই নেই।” অন্যদিকে পুলিশ সুপার সুনীল যাদব বললেন, “বিষয়টি জানা নেই। তবে কোনও রাজনৈতিক দলের অফিস ও জমি দখলের বিষয় হলে তারা আদালতে যেতে পারে।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!