এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > সংবাদমাধ্যমকে রাজনীতিবিদদের মানহানির নোটিশ নিয়ে বড় নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

সংবাদমাধ্যমকে রাজনীতিবিদদের মানহানির নোটিশ নিয়ে বড় নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

অবশেষে সংবাদমাধ্যমের বাক-স্বাধীনতা নিয়ে বড়সড় ঘোষণা করল দেশের সর্বোচ্চ আদালত। এতদিন বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমকে ভয়ে ভয়ে কাজ করতে হত, যদি কোনো ক্ষেত্রে তারা কোনো রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে আর্থিক দুর্নীতিতে জড়িত থাকার খবর করত, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গেছে যে সংবাদমাধ্যম এই ধরনের খবর পরিবেশন করেছে তার পরের দিনই সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক নেতা-নেত্রী তাদেরকে মানহানির নোটিশ পাঠিয়ে দিয়েছেন বা সরাসরি মামলা করে দিয়েছেন। কিন্তু আজ সুপ্রিম কোর্টে একটি মামলার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্ত্বে একটি বেঞ্চ তার পর্যবেক্ষণে যা জানিয়েছে তাতে রাজনৈতিক নেতাদের এই কথায় কথায় মানহানির নোটিশ পাঠানো বা মামলা করার দিন এবার শেষ হতে চলেছে। বুক চাপা উৎকণ্ঠা থেকে বেরিয়ে কিছুটা স্বস্তির শ্বাস ফেলতে পারবে এবার সংবাদমাধ্যমগুলি।

আজ প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের একটি বেঞ্চ তার পর্যবেক্ষণে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়েছে, কোনও আর্থিক দুর্নীতি বা সেই দুর্নীতিতে কোনও ব্যক্তির জড়িত থাকার অভিযোগ নিয়ে সংবাদমাধ্যমের খবর করার ক্ষেত্রে ছোটখাটো ভুল থাকলে বা অতি উত্‍সাহে কিছুটা বাড়াবাড়ি হলে তা মানহানির পর্যায়ে পড়বে না, মানহানির সাংবিধানিক বৈধতা থাকলেও। প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র এ দিন মৌখিক ভাবে তাঁর পর্যবেক্ষণে জানিয়েছেন, গণতন্ত্রে আমাদের আরও সহনশীল হয়ে উঠতে হবে। মানহানির মামলা করার সাংবিধানিক বৈধতা আছে ঠিকই, কিন্তু আর্থিক দুর্নীতির ঘটনায় যে বিভ্রান্তিকর খবর সম্প্রচারের অভিযোগ করা হয়েছে, তা মানহানির মামলার যোগ্য নয়। বিহারের এমনই এক মামলার পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি মিশ্রের নেতৃত্ত্বে বেঞ্চ সামগ্রিক ভাবে জানিয়েছে, আর্থিক দুর্নীতির ঘটনার খবরে ছোটখাটো ভুল থাকতে পারে। অতি উত্‍সাহেরও প্রকাশ ঘটতে পারে সেখানে। কিন্তু আমাদের বাক স্বাধীনতা আর মতামত প্রকাশের পূর্ণ স্বাধীনতা দেওয়া উচিত সংবাদ মাধ্যমকে। ছোটখাটো ভুল থাকতেই পারে খবর পরিবেশনে। সেগুলি মানহানির পর্যায়ে পড়ে না।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!