এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > গদ্দার টিকিট চেয়েছিল – দাবি মমতার, জেনে নিন কে গদ্দার

গদ্দার টিকিট চেয়েছিল – দাবি মমতার, জেনে নিন কে গদ্দার

প্রায় বেশ কিছুদিন আগেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একদা ছায়া সঙ্গী হিসেবে পরিচিত মুকুল রায় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের পড়ে তাকে “গদ্দার” বলে অভিহিত করেছিল শাসক দল। আর এবার লোকসভা নির্বাচনের দামামা বাজবার পর ভাটপাড়ার হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়ক অর্জুন সিং তৃনমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের পর তাকেও গদ্দার বলে অভিহিত করলেন খোদ তৃনমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বস্তুত, কিছুদিন আগেই অর্জুন সিংহ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের পরই ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদীর বিরুদ্ধে তাঁকে প্রার্থী করে বিজেপি। চতুর্থ দফার নির্বাচন ইতিমধ্যেই শেষ হয়ে গেছে। আর পঞ্চম দফায় সেই ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের নির্বাচন। ইতিমধ্যেই ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র নিজেদের দখলে রাখতে যেমন এবার সেখানে জোর প্রচার চালাচ্ছে তৃণমূল, ঠিক তেমনই এবারে ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র দখলে তারা এগিয়ে আছে বলে দাবি করতে শুরু করেছে বিজেপি।

আর এহেন একটা পরিস্থিতির মধ্যেই এবার ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদীর সমর্থনে প্রচারে এসে নাম না করে সেই অর্জুন সিংহকে গদ্দার বলে কটাক্ষ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, আজ ভাটপাড়ার নির্বাচনী প্রচারে এসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “একজন গদ্দার ভোটের টিকিট চাইতে এসেছিল। তাকে টিকিট দেইনি। আসলে গদ্দার সব দলেই থাকে।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এবার এই ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের টিকিটে দাঁড়ানোর জন্য ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন অর্জুন সিংহ। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে টিকিট না দিয়ে ফের দীনেশ ত্রিবেদীর ওপর আস্থা রাখাতেই তিনি দলবদল করেছেন। আর এদিন সেই কথা তুলে ধরেই নাম না করে অর্জুনবাবুকে গদ্দার বলে কটাক্ষ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ।

যদিও বিজেপির পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, রাজনীতিতে যদি সব থেকে বড় বদ্দার হয় তাহলে তার নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেননা বিজেপি, কংগ্রেসের সাথে সংসার করে তাদের কাছ থেকে মন্ত্রীত্ব, ক্ষমতা পাওয়ার পরেও তাদেরকেই ছুড়ে ফেলে দিয়েছেন তিনি‌। তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের থেকে সব থেকে বড় গদ্দার আর কেউ নেই বলে দাবি করতে শুরু করেছে গেরুয়া শিবির।

তবে শুধু গদ্দার ইস্যুতে অর্জুন সিংহকে কটাক্ষ করাই নয়, এদিনের ভাটপাড়ার সভা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বক্তব্যকে তুলে ধরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “নরেন্দ্র মোদী ভোট প্রচারে নাকি ঘোড়া কেনাবেচা করতে এসেছেন! উনি বলছেন 40 জন বিধায়ক নাকি ওনার সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে। একজন প্রধানমন্ত্রীর মুখে এইসব কথা শোভা পায় না। কারা যোগাযোগ রাখছে ওনার সাথে, তার নাম ওনাকে বলতে হবে।”

পাশাপাশি এদিন সাম্প্রদায়িক ইস্যুতেও গেরুয়া শিবিরের উদ্দেশ্যে আক্রমণ শানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সব মিলিয়ে এবার ভাটপাড়ার নির্বাচনী সভা থেকে ফের নাম না করে “গদ্দার” বলে কটাক্ষ করে অর্জুন সিংহকে বিঁধে রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল তুলে দিলেন তৃনমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!