এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > গঙ্গারামপুর পৌরসভা কার দখলে! অনাস্থার আগে শুরু তরজা

গঙ্গারামপুর পৌরসভা কার দখলে! অনাস্থার আগে শুরু তরজা

লোকসভা নির্বাচনে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী অর্পিতা ঘোষ পরাজিত হয়ে যাওয়ার পরই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল সভাপতি পদ থেকে বিপ্লব মিত্রকে সরিয়ে দেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এরপর থেকেই বিপ্লববাবুর বিজেপিতে যোগদানের সম্ভাবনা জোরালো হয়ে উঠতে শুরু করে।

আর এরপর গত 24 শে জুন সমস্ত জল্পনাকে দমিয়ে দিয়ে দিল্লিতে গিয়ে জেলা পরিষদের 10 জন সদস্যকে নিয়ে নিজের গলায় পদ্ম শিবিরের পতাকা পড়ে নেন বিপ্লব মিত্র। আর তারপরই দিল্লি থেকে তিনি হুংকার ছাড়েন, গঙ্গারামপুর পৌরসভা বিজেপির দখলে আসবে।

এদিকে গঙ্গারামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান পদে থাকা বিপ্লব মিত্রের ভাই প্রশান্ত মিত্র গেরুয়া শিবিরে যোগদান না করলেও তার সাথে বিজেপির তলায় তলায় সম্পর্ক রয়েছে এই অভিযোগ উঠতে শুরু করে। যার ফলস্বরুপ সেই প্রশান্ত মিত্রকে দল থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী অর্পিতা ঘোষ। আর এই ঘটনার পরই গঙ্গারামপুর পৌরসভায় শুরু হয় জোর চাপানউতোর।

প্রশান্ত বাবুর বিরুদ্ধে অনাস্থা আনা হবে বলে জানিয়ে দেন তৃণমূলের কাউন্সিলররা। পাল্টা তার দিকেই সমস্ত কাউন্সিলর রয়েছে বলে নিজের যুক্তি খাড়া করেন প্রশান্ত মিত্র। আর এহেন একটা পরিস্থিতিতে আগামী 5 আগস্ট কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায় সেই গঙ্গারামপুর পৌরসভায় ভোটাভুটির দিন ধার্য করেছেন। ভোটাভুটিতে কি হবে, কারা জয়ী হবেন তা সময় বলবে। কিন্তু তার আগে এদিন গঙ্গারামপুর পৌরসভা নিয়ে এক আশ্চর্য দৃশ্যের সাক্ষী থাকল সকলে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

সূত্রের খবর, পৌরসভায় অচলাবস্থা চলছে, এই অভিযোগ তুলে শুক্রবার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার জেলাশাসকের সঙ্গে দেখা করেন গঙ্গারামপুর পৌরসভার 10 জন কাউন্সিলর। যেখানে তৃণমূলের 9 জন কাউন্সিলার যেমন উপস্থিত ছিলেন, ঠিক তেমনই কিছুদিন আগেই তৎকালীন তৃণমূল নেতা বিপ্লব মিত্রের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া গঙ্গারামপুর পৌরসভার বিজেপি কাউন্সিলর অশোক বর্ধনও উপস্থিত ছিলেন। যে ঘটনা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।

তাহলে কি এবার কিছুদিন আগে বিজেপিতে যোগ দেওয়া অশোক বর্ধন বিপ্লব মিত্র বিজেপিতে আশায় তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন, তা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। তবে যোগদান অপেক্ষা বর্তমানে সংখ্যাধিক্য নিয়েই বেশি তরজা চলছে গঙ্গারামপুর পৌরসভায়। চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্রের বিরুদ্ধে সরব হয়ে গঙ্গারামপুর পৌরসভার অচলাবস্থা কাটাতে 10 জন কাউন্সিলরের জেলাশাসকের সঙ্গে সাক্ষাৎ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।

জানা গেছে, এদিন প্রাক্তন বিধায়ক সত্যেন রায়ের নেতৃত্বে এই 10 জন কাউন্সিলর জেলা প্রশাসনিক ভবনে উপস্থিত হন। সেখানে প্রথমে গঙ্গারামপুরের মহকুমাশাসকের সঙ্গে বৈঠক করেন তারা। কি হবে ভোটাভুটিতে! এদিন এই প্রসঙ্গে গঙ্গারামপুর পৌরসভার প্রাক্তন ভাইস চেয়ারম্যান তৃণমূলের অমলেন্দু ভুষন সরকার বলেন, “আগামী 5 আগস্টের ভোটাভুটিতে আমরাই জয়ী হব। পুরসভার 14 জন কাউন্সিলার আমাদের সঙ্গে রয়েছে। গঙ্গারামপুরে দুর্গতদের মধ্যে ত্রাণ বিলি নিয়ে প্রশান্ত মিত্র কোনরূপ গোষ্ঠীবাজি যাতে না করতে পারে, সেই ব্যাপারে আমরা মহকুমা শাসকের সঙ্গে আলোচনা করেছি।”

অন্যদিকে এই ব্যাপারে পাল্টা সেই প্রশান্ত মিত্র বলেন, “যে দুর্গতদের অসহায়তার কথা ভেবে কয়েকদিন ধরে সুষ্ঠুভাবে ত্রাণের ত্রিপল বিলি করা হচ্ছিল, অমলেন্দুভূষণ সরকারের নেতৃত্বে তৃণমূলের লোকেরা সেখানে অশান্তির মাধ্যমে প্রশাসনকে দিয়ে তা বন্ধ করে দিয়েছে। যে যতই জেলা প্রশাসনিক ভবনে কাউন্সিলরদের জোরপূর্বক নিয়ে গিয়ে ম্যাজিক দেখানোর চেষ্টা করুন না কেন, 5 আগস্ট স্পষ্ট হয়ে যাবে কারা টিকে থাকবে।”

তবে শেষ পর্যন্ত কি হবে, কার দখলে থাকবে গঙ্গারামপুর পৌরসভা! তা দেখার জন্য অপেক্ষা করতেই হবে আগামী 5 আগস্ট পর্যন্ত।

Top
error: Content is protected !!