এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > গান্ধী-জয়ন্তীতে গান্ধী ভক্তদের জন্য বড়সড় উপহার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

গান্ধী-জয়ন্তীতে গান্ধী ভক্তদের জন্য বড়সড় উপহার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

গান্ধীজির দেড়শোতম জন্মজয়ন্তীত  বেলেঘাটায় তাঁর নামাঙ্কিত ভবনের সংস্কারের মাধ্যমে এবার গান্ধী ভবনের পুরোনো রূপ ফেরাতে উদ্যোগী হচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, এই গান্ধী ভবনকেই এবার থেকে কলকাতার অন্যতম পর্যটন গন্তব্য হিসেবে  গড়ে তুলতে চায় রাজ্য সরকার।

জানা গেছে, আগামী 2 রা অক্টোবর গান্ধীজীর জন্মজয়ন্তী পালনের পরেই এই ভবনের হৃতগৌরব পুনরুদ্ধারে হাত লাগাবে রাজ্য সরকার। তবে এতদিনের প্রাচীন ভবনের আগের রুপ ফিরিয়ে আনা কি আদৌ সম্ভব? এ প্রসঙ্গে গান্ধী স্মারক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক পাপড়ি সরকার বলেন, ” ভবনটির সেই সময়ের ছবিগুলি থেকে পুরোনো সময়ের রূপটিকে বোঝার চেষ্টা চলছে। সে সময় বাড়িটিতে যাতায়াত ছিল এমন মানুষদেরও খোঁজ চলছে।”  

সূত্রের খবর, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির প্রতীক হিসেবেই এই ভবনটিকে গড়তে চাইছে রাজ্য। এমনকী এই গান্ধী ভবনের পুরোনো রূপ ফেরানোর দায়িত্বও দেওয়া হচ্ছে পূর্ত দ্প্তরকেই। এমনকী এই ব্যাপারে হেরিটেজ কমিটির সহায়তাও নেওয়া হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে রাজ্য হেরিটেজ কমিশনের চেয়ারম্যান তথা বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী শুভাপ্রসন্ন বলেন, চলতি বছর থেকেই গান্ধীজির জন্মের সার্ধ শতবর্ষ উদৎাপন শুরু হবে। সেই উপলক্ষে মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল। সেই কমিটির বৈঠকেই গান্ধী ভবনটিকে পুরনো রূপ ফিরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। “

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

শুধু এখানেই শেষ নয়, এবার গান্ধীজির নামাঙ্কিত একটি বিশ্ববিদ্যালয়ও গড়ে তুলবে রাজ্য সরকার। সবমিলিয়ে 2007 শেষবার গান্ধী ভবনের সংস্কারের পর এবার সেই গান্ধী জয়ন্তীর পরেই গান্ধী ভবনকে নতুন রুপ দিতে উদ্যোগী রাজ্য সরকার। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই খুশির হাওয়া গান্ধীপ্রেমীদের।

 

Top
error: Content is protected !!