এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > মমতার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করতে সিপিএম – কংগ্রেস বিজেপির হাতে অস্ত্র তুলে দিচ্ছে: ফিরহাদ হাকিম

মমতার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করতে সিপিএম – কংগ্রেস বিজেপির হাতে অস্ত্র তুলে দিচ্ছে: ফিরহাদ হাকিম

দীর্ঘদিন ধরেই বিজেপির সঙ্গে বাম এবং কংগ্রেসের সমঝোতার অভিযোগ করে আসছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের নেতারা। আর এবার লোকসভা নির্বাচনের মরসুমে শনিবার কালিয়াচকের যদুপুর হাসপাতাল মাঠে এবং ইংলিশবাজারের মিলকিতে দক্ষিণ মালদহ লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেনের সমর্থনে নির্বাচনী জনসভায় এসে সেই একই অভিযোগ করলেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। সূত্রের খবর, এদিন ফিরহাদ হাকিম বলেন, “সিপিএম দক্ষিণ মালদহে কংগ্রেসকে সুবিধা করে দিতেই প্রার্থী দেয়নি।”

তিনি আরও বলেন, “কারণ এরা চাইছে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের ক্ষমতা চলে যাক। কিন্তু বরকত সাহেব যেমন সিপিএমকে উৎখাত করতে চেয়েছেন, ঠিক তেমনই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তা করেছেন। কিন্তু এখানে কংগ্রেস সিপিএমের সঙ্গে হাত মিলিয়ে জেতার চেষ্টা করছে। এদের কোনো শিরদাঁড়া নেই। যদি কেউ আত্মমর্যাদা লড়াই করে থাকেন তাহলে তার নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়‌। বিজেপিকে সুবিধা করে দিতে আজকে বাম এবং কংগ্রেস যৌথভাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছে।”

হাতের মুঠোয় আরও সহজে প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে যোগ দিন –

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

এদিকে এদিনের সভা থেকে দক্ষিণ মালদহের বিদায়ী কংগ্রেস সাংসদ তথা আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে এখানকার কংগ্রেস প্রার্থী আবু হাসেম খান চৌধুরীর বিরুদ্ধেও সুর চড়িয়ে ফিরহাদ হাকিম বলেন, “গত ৫ বছরে নোটবন্দি, জিএসটির মত ঘটনা ঘটে গেলেও সংসদে গিয়ে আবু হাসেম খান চৌধুরী কোনো প্রতিবাদ করেননি।” এদিকে প্রথমে যদুপুর হাসপাতাল মাঠে সভা করার পর পরে ইংলিশবাজারের মিল্কিতে সভায় যোগ দেন ফিরহাদ হাকিম। সেখানে ফের বিজেপির বিরুদ্ধে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন তিনি।

তিনি বলেন, “নরেন্দ্র মোদি পাকিস্তানের সঙ্গে গট আপ গেম খেলছেন। না হলে কিভাবে ইমরান খান বলছেন যে মোদি সরকার এসে দু’দেশের সমস্যা মিটে যাবে। মোদিকে ভারতবর্ষের মা বোনেরা কখনো ক্ষমা করবে না। আজকে কংগ্রেস যেভাবে বাম এবং বিজেপির সঙ্গে হাত মেলাচ্ছে, গনিখান বেঁচে থাকলে তিনি এই দুরবস্থা দেখে আত্মহত্যা করতেন। এই রাজ্য থেকে সিপিআইএমকে হঠিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই কেন্দ্র থেকে বিজেপিকে হঠাতে পারেন একমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই।” সব মিলিয়ে এবার মালদহে এসে বাম ও কংগ্রেসের বিরুদ্ধে বিজেপিকে বাড়তি অক্সিজেন দেওয়ার অভিযোগ তুলে রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল তুলে দিলেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

Top
error: Content is protected !!