এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > আদিবাসী এলাকা চিন্তা বাড়াচ্ছে, তবুও বীরভূম থেকেই ৪ লক্ষ লোক নিয়ে যেতে চান ফিরহাদ-অনুব্রত

আদিবাসী এলাকা চিন্তা বাড়াচ্ছে, তবুও বীরভূম থেকেই ৪ লক্ষ লোক নিয়ে যেতে চান ফিরহাদ-অনুব্রত

হাতে আর দু দিন।তারপরেই কোলকাতার ধর্মতলায় তৃনমূলের 21শে জুলাইয়ের শহীদ সমাবেশ। ইতিমধ্যেই জেলাগুলি থেকে কর্মীসমর্থকেরা রওনা দিতে শুরু করেছেন কোলকাতার উদ্দেশ্যে। কারন এবারের 21 শে জুলাই বেশ তাৎপর্যপূর্ন। একদিকে এটিই লোকসভার আগে তৃনমূলের কাছে বড় একটি সমাবেশ। তাই এই সমাবেশ থেকেই কর্মীসমর্থকদের উদ্দিশ্যে ভবিষ্যৎ দিশা নিয়ে ঠিক কী বার্তা দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কিন্তু তৃনমূলের শক্ত ঘাটি তথা অনুব্রত মন্ডলের গড় বলে পরিচিত বীরভূম থেকে লোক নিয়ে যেতে এবার কিছুটা বেগ পেতে হচ্ছে শাসকদলকে। কিন্তু কেন? সদ্যসমাপ্ত পঞ্চায়েত নির্বাচনে বরভূম সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে আদিবাসী এলাকায় ভালো ফল করেছে বিজেপি। বুধবার বীরভূমের জেলা কমিটির বৈঠকে উপস্থিত হয়ে দলের পর্যবেক্ষক তথা পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম সেই পুরনো ভোটব্যাঙ্ক ফিরিয়ে আনার পক্ষে জোর দেন।

বৈঠকে দলের আদিবাসী নেতাদের উদ্দেশ্যে ফিরহাদ হাকিম বলেন, “আদিবাসীদের জন্য আমাদের সরকার যা কাজ করেছে তা আর কেউ করতে পারেনি। বিজেপি অশান্তি লাগিয়ে ঝাড়খন্ড থেকে লোক এনে মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে।” এদিনের এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মৎসমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা, কৃষিমন্ত্রী আশস বন্দ্যোপাধ্যায়, বিদায়ী সভাধিপতি ইকাশ রায়চৌধুরী সহ প্রমুখ। বৈঠকে 21 শে জুলাইয়ে জেলা থেকে কত লোক নিয়ে যাওয়া যায় সে প্রসঙ্গে প্রতিটি ব্লক ও অঞ্চল সভাপতিদের উদ্দেশ্যে অনুব্রত মন্ডল বলেন, “বাস, ট্রেন প্রচুর আছে।পারলে রাতে করে ট্রেনে চলে যান। কিন্তু এই জেলা থেকে চার লক্ষ লোক নিয়ে যাওয়া চাই।”

এদিকে বৈঠক থেকে বিজেপি ও মোদীকে কটাক্ষ করেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও অনুব্রত মন্ডল। তাঁরা বলেন, “বিজেপি যতই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আটকাতে চান না কেন আগামী লোকসভায় তাঁর হাত ধরেই সারা দেশ থেকে বিজেপি উৎখাত হবে।” এদিকে এদিনের এই বৈঠকের পর 21 শে জুলাইয়ের সমর্থনে বোলপুর থেকে একটি মিছিল বের হয়ে তা শেষ হয় চৌরাস্তা মোড়ে। মিছিলে হাটেন জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডলও।

রাজনৈতিক মহলের মতে, 2019 র কাউন্টডাউন 21 শে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকেই যে শুরু করে দেবে তৃনমূল কংগ্রেস তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। আর তাই দলের আদিবাসী ভোটব্যাঙ্ককে মজবুত করতে ও 21 শে জুলাইয়ে বীরভূম থেকে 4 লক্ষ লোক নিয়ে গিয়ে বীরভূমে যে নিজেদের দলীয় সংগঠন মজবুত রয়েছে তা প্রমান করে দেবেন দিদির প্রিয় “ববি এবং কেষ্ট”।

Top
error: Content is protected !!