এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দুষ্কৃতী তান্ডবে নাজেহাল,পুড়লো অটো

দুষ্কৃতী তান্ডবে নাজেহাল,পুড়লো অটো

সরস্বতী পুজোর আগের দিন থেকেই এলাকায় গন্ডগোলের আঁচ করছে এলাকাবাসী। কখনো শুকনো গাছে আগুন ,কখনো আলমারি কারখানার জিনিসপত্র রাস্তার ওপর ছড়ানো। কিন্তু এইসব বিভিন্ন ঘটনাকে তেমন ভাবে গুরুত্ত না দিলেও । রবিবার রাতের ঘটনায় রীতিমত আতঙ্কিত লিলুয়ার বি রোডের বাসিন্দারা। মাঝরাতে কে বা কারা রাস্তার উপর দাঁড়িয়ে থাকা অটোই আগুন দিলো দেখেনি কেউ। এই ঘটনার পর পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন এলাকাবাসী।

লিলুয়ার বি রোডের বাসিন্দাদের কথায়, এলাকায় কয়েকদিন ধরেই এক দল দুষ্কৃতীর উপদ্রব শুরু হয়েছে। প্রথম দিকে গুরুত্ব না দিলেও বর্তমানে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাওয়ায় প্রশাসনের সাহায্য নেওয়া হচ্ছে। এলাকার এক বাসিন্দা জানান, রবিবার রাতে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে ছিল স্থানীয় বাসিন্দা সাধনা কানুর অটো। মাঝরাতে হঠাৎই কেউ অটোয় আগুন লাগিয়ে দেয়। এবং আগুন লাগানো হয় পাশের ক্লাবের কল্যাপ্সিবল গেটের পর্দায়। এই কাজ কারা করলো তা কেউ না দেখলেও, এলাকার বাসিন্দাদের বক্তব্য ঘটনার রাতে মুখে রুমাল বেঁধে ৭-৮জন দুষ্কৃতিদের লাঠি তরোয়াল নিয়ে ঘুরতে দেখা গেছে। স্থানীয় বাসিন্দারা ওই দুষ্কৃতীদেরই সন্দেহ করছেন।

এ বিষয়ে ওই অটোর মালকিন সাধনা কানু-র ছেলে পাপ্পু কানু জানান, এ দিন রাত সাড়ে তিনটায় নাগাদ স্থানীয় মুদি দোকানি তাকে খবর দেন। তৎক্ষণাৎ তিনি ঘটনাস্থলে এসে জ্বলতে থাকা অটোয় জল ঢেলে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন। তিনি বলেন, সময়মত আগুন না নেভালে গ্যাসে চলা ওই অটোর সিলিন্ডারে আগুন লেগে ভয়াবহ ঘটবে ঘটত। পাশাপাশি বাড়ি গুলোতেও আগুন ছড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল। বাবা মারা যাওয়ার পর সংসার চালানোর ওই একমাত্র সম্বল বলতে ওই অটো টা। সেটা পুড়ে যাওয়ায় কার্যত পথে বসতে হবে ওই পরিবার কে।

যদিও এলাকাবাসী চন্দ্রনাথ সিংহ বলেন, ওই এলাকায় আগে কখনও এই ধরণের ঘটনা ঘটেনি। এলাকা এমনিতেই শান্তিপ্রিয়। তবে কি উদ্দ্যেশে দুষ্কৃতীরা এই কাজ করছে তার তদন্ত করা প্রয়োজন। এই ঘটনার তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন এলাকার কাউন্সিলর পম্পা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ পুলিশের এক পদস্থ কর্তা। ওই কর্তার মতে, এই ঘটনায় অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে। তবে এলাকায় সিসিটিভি না থাকায় অসুবিধা হচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!