এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > পুড়ে ছাই তৃণমূলের পার্টি অফিস – গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব না বিরোধী ‘দুষ্কৃতীদের’ চক্রান্ত তাই নিয়ে তুমুল তরজা

পুড়ে ছাই তৃণমূলের পার্টি অফিস – গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব না বিরোধী ‘দুষ্কৃতীদের’ চক্রান্ত তাই নিয়ে তুমুল তরজা

যত লোকসভা নির্বাচন এগিয়ে আসছে বাংলার বুকে তত তীব্র হচ্ছে রাজনৈতিক হানাহানি ও পারস্পরিক অভিযোগের মাত্রা। গত শুক্রবার গভীর রাতে শান্তিপুর থানার ঘোড়ালিয়ায় রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের একটি পার্টি ভস্মীভূত হয়ে যায়। জাতীয় সড়কের ঠিক পাশেই অবস্থিত ঘোড়ালিয়া-২ অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিসে রাতের অন্ধকারে কেউ বা কারা আগুন ধরিয়ে দেয়, শনিবার সকালে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ত্ব দেখেন তাঁদের পার্টি অফিস ভস্মীভূত হয়ে গেছে। তৃণমূল সূত্রের খবর, ওই আগুনে আসবাবপত্র, প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও একটি সাইকেল পুড়ে নষ্ট হয়ে গিয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে এই নিয়ে স্থানীয় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলেও জানা গেছে।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে এই ঘটনার পর রীতিমত তরজা শুরু হয়ে গেছে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে। স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ত্বের দাবি এই ঘটনার পিছনে বিরোধী দলের আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হাত রয়েছে বলে তাঁদের অনুমান। এমনকি নদীয়া জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি গৌরীশঙ্কর দত্তের বিস্ফোরক দাবি, বিজেপি-সিপিএম-কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, আমরা রাজনৈতিকভাবে এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করব। যদিও নদীয়া জেলা সভাপতি মহাদেব সরকার গৌরীশঙ্করবাবুর সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে জানিয়েছেন, অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা, তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরেই এই ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ, তাঁদের দাবি এই ঘটনার পিছনে যদি দুষ্কৃতীদের হাত থাকে তাহলে শীঘ্রই অপরাধীদের গ্রেপ্তার করা হবে।

* প্রতিবেদনের সঙ্গে প্রকাশিত ছবিটি প্রতীকী, মূল ঘটনার সাথে কোনো সংযোগ নেই

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!