এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > সত্যি কি দ্বন্ধ মিটলো দুই মন্ত্রীর নাকি সবটাই নেত্রীকে দেখানো?প্রশ্ন উঠছে দলের অন্দরে

সত্যি কি দ্বন্ধ মিটলো দুই মন্ত্রীর নাকি সবটাই নেত্রীকে দেখানো?প্রশ্ন উঠছে দলের অন্দরে

রাজনৈতিক মহলকে অবাক করে দেওয়ার মত ঘটনা ঘটালেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন‌মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ এবং পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব। বুধবার গৌতম বাবু কাউন্সিলারদের সঙ্গে নিয়ে রবীন্দ্রনাথ বাবুর ওয়ার্ডের উন্নয়ন সম্পর্কে আলোচনা করেন সাথে সাথেই মধ্যাহ্ন ভোজন ও‌ করেন রাবিবাবুর বাড়িতে। আরএই ঘটনা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে জল্পনা।অবশ্য শুধু রাজনৈতিক মহলেই নয় চর্চা শুরু হয়েছে দলের অন্দরেও। তার কারন, কয়েকদিন আগেই এই দুই‌ মন্ত্রীর মধ্যেকার দ্বন্ধ সামনে চলে আসে। রবিবাবু , গৌতমবাবুর সময় উত্তরবঙ্গের উন্নয়ন‌ দফতর কি কাজ করে সে বিষয়ে প্রশ্ন করে নিজেদের সম্পর্কে তিক্ততা বাড়িয়েছিল। তাঁদের এহেন আচরনে দলের শীর্ষ নেতারাও ক্ষুব্ধ হন।
সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রীর উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়ে গৌতম বাবু রবীন্দ্রনাথ বাবুর ঝামেলা মেটাতে উদ্যোগী হন এবং অরূপ‌ বিশ্বাসকে নির্দেশ দেন আলোচনার মাধ্যমে‌ এই সমস্যার সমাধান করতে।জানা গেছে অরূপবাবুও তাঁদের সাফ জানান, ” নিজেদের মধ্যে অলিখিত লড়াই বন্ধ না হলে দলনেত্রী কাউকেই রেয়াত করবেন না।”আর তাই এই ঘটনা নিয়ে দলের বেশিরভাগ সদস্যের মত যে শীর্ষ নেতার সতর্ক বার্তা আসার পর , তাঁরা যে মিলেমিশেই আছে তা দলকে ‌বোঝাতেই এদিন এক মন্ত্রীর তরফে মধ্যাহ্নভোজনের আমন্ত্রণ এবং অপর মন্ত্রী তা রক্ষা করতে গেছিলেন। যদিও দুই‌মন্ত্রীর কেউই মানতে রাজি নন যে তাঁদের‌ মধ্যে মতবিরোধ আছে।
যদিও‌ এই‌ বিষয়ে রবীন্দ্রনাথবাবু বলেন, ” অন্য কোনও ব্যাপার নেই। পুরনো বন্ধু। অনেক সময়েই কোচবিহার ছেড়ে শিলিগুড়িতে এসে থাকতে হয়। বাড়িতে সব সময় তাই খেতেও ডাকতে পারিনা। এদিন দুপুরে একটু খেতে ডেকেছিলাম। শরীরের অসুস্থতার জন্য ও সব কিছু খেতেও পারে না। মাছ ভাজা দিয়ে খুব সাধারণ ভাবেই খেয়েছে।” অন্যদিকে গৌতমবাবু বন্ধুর আমন্ত্রণে বেশ খুশি তিনি জানান, ” বন্ধুর বাড়িতে এসেছি অনেকদিন বাদে। বন্ধু আসতে বলেছে। ভালবেসে। একটু খাওয়াদাওয়া করলাম। খুব ভাল লাগল। খুব ভাল রান্না হয়েছে। পছন্দের রান্না করেছে। ”
পাশাপাশি গৌতম বাবু বলেন যে তাঁদের মধ্যে কোনও দ্বন্দ্ব নেই। ভেদ নেই। তাঁদের দল এক , নেত্রী এক ,পতাকা এক। বন্ধুত্বের হৃদয় এক। তিনি আরও বলেন যে ৩০ বছরের বন্ধুত্ব কী করে আলাদা হব। সংবাদ মাধ্যমই মাঝেমধ্যে আলাদা করে দেয়।তবে যে যায় বলুক বিরোধী থেকে দলের অন্দরে কিন্তু শোরগোল পড়েছেই। আর এটা কি সত্যিই দ্বন্দ্ব মিটলো নাকি লোক দেখানো তা জানতে ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে সবাই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!