এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কৃষিঋণ মুকুব নিয়ে মোদী সরকারের উপর চাপ বাড়ালেন রাহুল, অস্বস্তিতে বিজেপি

কৃষিঋণ মুকুব নিয়ে মোদী সরকারের উপর চাপ বাড়ালেন রাহুল, অস্বস্তিতে বিজেপি

কথা দিয়ে কথা রেখে এবার কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ফের অলআউট অ্যাটাকে অবতীর্ণ হলেন কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল গান্ধী। সম্প্রতি দেশের পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে গিয়ে প্রায় প্রত্যেক জায়গাতেই ক্ষমতায় এলে 10 দিনের মধ্যে কৃষকদের কৃষিঋণ মুকুব করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন কংগ্রেসের এই সেনাপতি।

আর সেইমতো ছত্রিশগড়, রাজস্থান ও মধ্যপ্রদেশে সেই কংগ্রেস সরকার গঠনের পরই এবং গতকাল সেই তিন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর শপথ নেওয়ার কয়েক ঘন্টা পরেই তাঁরা দলের সেনাপতির দেওয়া প্রতিশ্রুতিকে পালন করেছেন। যেমন, ছত্রিশগড় ও মধ্যপ্রদেশের দুই কংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রী কৃষকদের ঋণ মুকুবের পাশাপাশি ছত্রিশগড়ের ধানের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য একেবারে দেড় গুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছেন।

ফলে নির্বাচনে জিতে আসার আগে যে কথা দিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী, মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিয়ে তাঁর সৈনিকেরা সেই কথা পূরণ করায় সেখানকার কৃষকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে খুশির হাওয়া। এদিকে এই ঘটনাকে নিয়েই এবার কেন্দ্রের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে ময়দানে নেমে পড়েছেন কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

ক্ষমতায় আসার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই এই রাজ্যগুলির মুখ্যমন্ত্রীরা কৃষকদের জন্য সুবিধা ঘোষণা করলেও কেন কেন্দ্র সেই কাজ এখনো করতে পারছে না এই প্রশ্ন তুলে এদিন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেল রাহুল গান্ধীকে। এদিন কেন্দ্রকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী ভারতকে দু ভাগে ভাগ করেছেন। যার একদিকে রয়েছে গরিব, কৃষক, যুব সমাজ এবং ছোট ব্যবসায়ীরা, আর অন্যদিকে আছেন ভারতের শীর্ষস্থানীয় শিল্পপতিরা। শিল্পপতিদের 3 হাজার 500 কোটি টাকা উপহার দিলেও কৃষকদের একটি পয়সাও মুকুল করা হয়নি। আর তাই যতদিন না কৃষকদের এঈ ঋণ মুকুব হচ্ছে আমরা ততদিন মোদিকে ঘুমোতে দেবো না। এর জন্য সব বিরোধী দল একসঙ্গে কাজ করবে।”

তবে শুধু কৃষি ঋণ মুকুবই নয়, এদিন নোট বাতিল ও রাফাল কেলেঙ্কারি ইস্যুতেও কেন্দ্রে বিজেপি সরকারকে তীব্র কটাক্ষ করেন তিনি। নোট বাতিলকে বিশ্বের সবথেকে বড় দুর্নীতি বলে আখ্যায়িত করে রাফাল ইস্যুতে ফের জেপিসি তদন্তের দাবিতে সরব হতে দেখা যায় রাহুল গান্ধীকে।

রাজনৈতিক মহলের মতে, লোকসভা নির্বাচনের আগে এই কৃষকদের স্বার্থ সুরক্ষা নিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে চাপে ফেলতে চাইছে কংগ্রেস।আর তাইতো সুকৌশলে তিন রাজ্যে ক্ষমতায় এসেই তড়িঘড়ি সেখানকার কৃষকদের কৃষি ঋণ মুকুব করে এখন সারা দেশে সেই কৃষি ঋণ মুকুব করতে কেন বিজেপির পরিচালিত কেন্দ্রীয় সরকার অক্ষম হল! – এখন সেই প্রশ্ন তুলে দেশজুড়ে বিজেপি বিরোধী আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের ক্ষেত্র প্রস্তুত করছে হাত শিবির।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!