এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বাংলায় পাঠ্য-বইয়ে মারাত্মক ভুল – সংশোধনের আর্জি এল খোদ ফারহান আখতারের থেকে

বাংলায় পাঠ্য-বইয়ে মারাত্মক ভুল – সংশোধনের আর্জি এল খোদ ফারহান আখতারের থেকে

সারা দেশের সামনে এবার মুখ পুড়লো পশ্চিমবঙ্গের। প্রসঙ্গত রাজ্যের শিক্ষা দফতরের গাফিলতির জেরে সোস্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পশ্চিমবঙ্গ। রাজ্যের পাঠ্যবইগুলি এমনিতেই নানা মহলে ব্যাপক ভাবে সমালোচিত। তারপরে এবারের ঘটনা এ যাবতকালের সমস্ত কিছুকেই ছাপিয়ে গেলো।

জানা যাচ্ছে পাঠ্যপুস্তকের পাতায়  মিলখা সিং হিসেবে চেনানো হয়েছে ফারহান আখতারকে। আর সেই পাঠ্যপুস্তকের পাতা এখন সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে উঠেছে। তা স্বভাবতই রাজ্যের শিক্ষা দফতরের সমালোচনার ঝড় বইয়ে দিচ্ছে। উল্লেখ্য রাকেশ ওমপ্রকাশ মেহেরার ‘ভাগ মিলখা ভাগ’ ছবিতে মিলখা সিংয়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন ফারহান আখতার। সেই সিনেমায় মিলখা সিং এর ভূমিকায় অভিনয় করা ফারহান আখতারকেই মিলখা সিং হিসাবে পরিচয় দেওয়া হয়েছে বইয়ে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই শিক্ষার্থীরা মিলখা সিংকে দেখে চেনার পরিবর্তে ফারহান আখতারকে চিনেছে। এই কাণ্ডটি সম্ভব হয়েছে খোদ রাজ্যের শিক্ষা দফতরের সৌজন্যে।

এই ঘটনার প্রতিবাদে দেশের তথা রাজ্যের মানুষজন সোস্যাল মিডিয়ায় সোচ্চার হয়ে উঠছে। সওয়াল উঠছে রাজ্যের শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ভূমিকা এবং মন্ত্রীত্বের দায়িত্ব নিয়েও। এই ঘটনার বিষয়ে অবহিত স্বয়ং ফারহান আখতারও। তিনিও ছবিটি শেয়ার করেছেন বলে জানা যাচ্ছে। ফারহান আখতার আবার ঐ ছবিটি রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ ডেরেক ও ‘ব্রায়েনকেও পোস্টে ট্যাগ করেছেন। একইসাথে নিজের ট্যুইটে ফারহান আখতার রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন, তিনি যেন অবিলম্বে পাবলিশারকে বইয়ের এই সংস্করণ বাজার থেকে তুলে নিয়ে নতুন সংস্করণ চালু করার কথা বলেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আর এই নিয়ে রীতিমতো সোচ্চার হয়েছেন বিরোধীরা। তাদের কটাক্ষ রাজ্যে এমন উন্নয়ন চলছে যে মিলখা সিং আর মিলখা সিং নন ফারহান আখতার হয়ে গেছেন। শুধু রাজ্যে নয় দেশেও উন্নয়নের জোয়ার বইছে। সাথেই দাবি যে এর ফলে বাংলার করুন অবস্থা গোটা দেশের কাছে উন্মুক্ত হয়ে গেলো।

যদিও সব অভিযোগ অস্বীকার করে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন যে এটা সরকারি প্রকাশনীর তরফ থেকে ছাপানো হয়নি কোনো বেসরকারি প্রকাশনার তরফ থেকে প্রকাশিত হয়েছে। গুরুত্বের সঙ্গে বিষয়টি দেখা হচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!