এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > জামিন দেওয়াতে পারলেন না বিকাশরঞ্জনও, হাসপাতালে ভর্তি হতেই গ্রেপ্তার প্রাক্তন দাপুটে মন্ত্রী

জামিন দেওয়াতে পারলেন না বিকাশরঞ্জনও, হাসপাতালে ভর্তি হতেই গ্রেপ্তার প্রাক্তন দাপুটে মন্ত্রী

দীর্ঘদিন ধরেই ত্রিপুরার প্রাক্তন দাপুটে পূর্তমন্ত্রী তথা বর্তমান রাজ্য বিধানসভার উপ-বিরোধী দলনেতা বাদল চৌধুরীকে গ্রেপ্তারের জন্য হন্যে হয়ে খুঁজছিল রাজ্য পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে মন্ত্রী থাকাকালীন ২০০৮-০৯ অর্থবছরে বড়সড় আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠেছে। ফলে, তাঁকে গ্রেপ্তার করতে মরিয়া ছিল ত্রিপুরা পুলিশ। এমনকি, তাঁকে গ্রেপ্তার করতে না পারার জন্য বরখাস্ত হতে হয়েছে ৯ পুলিশ কর্মীকে।

কিন্তু, তাও তাঁর নাগাল পাওয়া যাচ্ছিল না। এদিকে গত সোমবার ত্রিপুরা হাইকোর্টে বাদলবাবুর আগাম জামিনের মামলার শুনানি ছিল। সেখানে ত্রিপুরার প্রাক্তন এই মন্ত্রীকে বাঁচাতে আসরে নামেন প্রখ্যাত আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য। কিন্তু দীর্ঘ সওয়াল-জবাবের পরেও বিকাশবাবু তাঁর মক্কেল বাদল চৌধুরীর আগাম জামিন জোগাড় করতে ব্যর্থ হন। দীর্ঘ শুনানির শেষে বিচারপতি অরিন্দম লোধ সেই মামলার রায়দান স্থগিত রাখেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

আর তারপরেই উপায়ান্তর না দেখে, আগরতলার এক বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি হন বদলবাবু। খবর পেয়েই পুরো নার্সিংহোম চত্ত্বর পুলিশ দিয়ে ঘিরে ফেলা হয়। এরপর, সেখানেই তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রসঙ্গত, ওই নার্সিংহোমের যে আইসিইউ বিভাগে ভর্তি আছেন, সেখানেই ভর্তি আছেন তৎকালীন ইঞ্জিনিয়ার-ইন-চিফ সুনীল ভৌমিক। তাঁকে ওই একই মামলাতে এর আগেই রাজ্য ভিজিল্যান্সের এফআইআরের ভিত্তিতে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

এদিকে, বদলবাবু গ্রেপ্তার হতেই তাঁর আগাম জামিনের মামলা খারিজ হয়ে গেছে। ফলে, আবার তাঁর হয়ে নতুন করে জামিনের জন্য গতকাল আবেদন করা হয়েছে। পাশাপাশি জানা গেছে, বাদলবাবুর শারীরিক অবস্থা এখন স্থিতিশীল – আর তাই, গোটা এলাকা ঘিরে রাখা হয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনীতে। অন্যদিকে, বদলবাবুর মত প্রাক্তন দাপুটে মন্ত্রী গ্রেপ্তার হতেই সংশ্লিষ্ট বেসরকারি হাসপাতালে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার-সহ সিপিএম শীর্ষ নেতৃত্ব ছুটে যান। কিন্তু সিপিএমের তরফে অভিযোগ জানানো হয়েছে, দলীয় নেতাদের তো বটেই, এমনকি বদলবাবুর চিকিৎসক ভাইকেও তাঁর সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!