এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > অনেক নাটকের পর গ্রেফতার হলেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী, জেনে নিন

অনেক নাটকের পর গ্রেফতার হলেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী, জেনে নিন

ঘড়ির কাটায় তখন 8:05 বেজে গিয়েছে। কংগ্রেসের সদরদপ্তরে 24 আকবর রোডে একটি সাদা এবং একটি কালো গাড়ি হঠাৎই ঢুকতে দেখা গেল। এদিকে যখনই গাড়িটি ঢুকছে, ঠিক তার দশ মিনিট পরেই একটি সাংবাদিক সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু গাড়িটি প্রবেশ করতেই ভেতরের পরিস্থিতি বদলাতে শুরু করে। শুরু হয় ছোটাছুটি। আর এরপরই সেই কালো গাড়ি থেকে নেমে আসতে দেখা গেল দেশের প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদাম্বরমকে।

পরনে সাদা জামা, কালো প্যান্টে কিছুটা বিধ্বস্ত লাগছিল এই কংগ্রেস নেতাকে। আর এরপরই হাতে এক বান্ডিল কাগজ নিয়ে আহমেদ পটেল, গুলাম নবি আজাদ এবং রাজিব শুক্লাকে পাশে বসিয়ে সাংবাদিক বৈঠকে বসলেন পি চিদাম্বরম। হাতের কাগজ দেখে গড় গড় করে নিজের কথা বলে গেলেন তিনি। কিন্তু কোনো প্রশ্নের উত্তর দিলেন না।

এদিকে পি চিদাম্বরম যখন সাংবাদিক বৈঠক করছেন, ঠিক তখনই সিবিআইয়ের আধিকারিকেরা আকবর রোডে পৌঁছে গেছে। এদিকে সিবিআই আধিকারিকদের পথেই কংগ্রেস সমর্থকরা আটকে দিলে জোড়বাগের নিজের বাড়ির দিকে রওনা দেওয়ার সময় “একটু স্নান করব, তারপরে সরকার যা করে করুক” বলে সতীর্থদের বলে গিয়েছিলেন চিদাম্বরম।

এদিকে চিদাম্বরম বাড়ি পৌঁছেছে, তা আঁচ করতে পেরে তার বাড়ি ফেরার 5 মিনিটের মধ্যেই সেখানে সিবিআই কর্তা এবং ইডি কর্তারা চলে যান। কিন্তু পি চিদাম্বরমের বাড়ির দরজা বন্ধ থাকায় পাঁচিল টপকে তার ভেতরে ঢোকেন সিবিআই আধিকারিকরা। এদিকে গোটা দেশ থেকে রাজীব গান্ধীর জন্ম বার্ষিকী অনুষ্ঠান উপলক্ষে বিভিন্ন যুব কংগ্রেস কর্মীরা কংগ্রেস দপ্তরে আসায় চিদাম্বরমের বাড়িতে সিবিআই পৌঁছেছে জানতে পেরে, তাদের একটি বড় অংশ সেখানে চলে যায়। আর সেখানেই বাইরে থেকে মোদী এবং অমিত শাহের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকেন সেই কংগ্রেস কর্মীরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এদিকে এই পরিস্থিতিতে সিবিআই আধিকারিকরা চিদাম্বরমকে মাঝের আসনে বসিয়ে গাড়ি করে নিয়ে গেলে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন কংগ্রেস কর্মীরা। শরু হয় প্রবল ধ্বস্তাধ্বস্তি। লাঠিচার্জ করতে বাধ্য হয় পুলিশ। সিবিআই সূত্রের খবর, সারা রাত ধরে পি চিদাম্বরমকে জেরা করা হবে। আর এর পরেই আগামীকাল তাকে আদালতে পেশ করে তার 14 দিনের জেল হেফাজতে রাখার আর্জি জানাবে সিবিআই। কিন্তু সকলের মনে একটাই প্রশ্ন যে, এতদিন ধরে তাহলে কোথায় ছিলেন দেশের প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী!

চিদাম্বরমের দাবি, হাইকোর্ট অন্তর্বর্তী জামিন খারিজের পর নিজের আত্মরক্ষার যুক্তি সাজানোর জন্য আইনজীবীদের সঙ্গে বসে কাল সারারাত ধরে আলোচনা করেছেন তিনি। এদিকে বাবাকে গ্রেফতারের পরে এদিন সিবিআইয়ের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে দেখা যায় সেই পি চিদাম্বরমের পুত্র কীর্তি চিদাম্বরমকে।

এদিন তিনি বলেন, “আমি 12 দিন সিবিআই হেফাজতে ছিলাম। কিন্তু আমার বিরুদ্ধে সিবিআই কোনো প্রমাণ জোগাড় করতে পারেনি। সিবিআই সরকারের হাতের পুতুল। কোনো একজন অফিসারের সৎ সাহস নেই, সত্যি কথা বলার। কিছু লোককে খুশি করতেই এই পদক্ষেপ করা হচ্ছে।” অন্যদিকে তার নামে কোনো অভিযোগ নেই বলে আত্মপক্ষ সমর্থন করতে দেখা যাচ্ছে পি চিদাম্বরমকেও। সব মিলিয়ে সিবিআই আধিকারিকদের পক্ষ থেকে পি চিদাম্বরমকে নিয়ে যাওয়া হলে এখন তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জাতীয় রাজনীতিতে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!