এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > তৃতীয় দফার ভোটে গেল প্রাণ, নির্বাচন কমিশন কি ব্যর্থ?

তৃতীয় দফার ভোটে গেল প্রাণ, নির্বাচন কমিশন কি ব্যর্থ?

সাত দফার মধ্যে ইতিমধ্যেই তিন দফায় ভোট সম্পূর্ণ হয়েছে। প্রথম দফায় প্রতি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী না থাকায় গণতন্ত্র প্রহসনে পরিণত হয়েছে বলে পরবর্তী দফাগুলোতে যাতে প্রতি বুথেই কেন্দ্রীয় বাহিনী দেওয়া যায় তার জন্য নির্বাচন কমিশনের কাছে আর্জি জানিয়েছিল বিরোধীরা। সেইমতো দ্বিতীয় দফায় নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে কিছুটা হলেও কড়া করেছিল কমিশন।

এমনকি তৃতীয় দফার ভোটের আগে প্রায় 92% বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকবে বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন কেন্দ্রের বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে। তবে এই কেন্দ্রীয় বাহিনী থেকে শুরু করে কঠোর নিরাপত্তার সবকিছুই শান্তিপূর্ণ ভোটের জন্য। যাতে বিগত নির্বাচনগুলোর মত আর কোনোরুপ অশান্তি বাংলায় না হয়। কিন্তু তৃতীয় দফার ভোটে দিনের শেষে সুর কাটল। ফের রক্ত ঝরল এই বাংলায়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, মুর্শিদাবাদের ভগবানগোলায় শাসক দল তৃণমূল বনাম বিরোধী দল কংগ্রেসের সংঘর্ষে প্রাণ হারালেন এক সাধারণ ভোটার। আর সাত দফার মধ্যে তিন দফার সম্পূর্ণ হতে না হতেই বাংলায় এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এক সাধারণ মানুষের মৃত্যুতে এবার কমিশনের ভূমিকায় নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করে দিল।

অনেকেই প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন, যে নিরাপত্তা ব্যবস্থা কঠোর করা হবে বলে আশ্বাস দিতে শোনা গিয়েছিল কমিশনের গলায়। তৃতীয় দফার ভোটের দিন কেন সেই নিরাপত্তাব্যবস্থার ফাক দেখা গেল! আর যদি সেইরকম নিরাপত্তা ব্যবস্থাই থাকত, তাহলে রাজনৈতিক দলগুলোর সংঘর্ষে কেনই বা মৃত্যু হল এক সাধারণ ভোটারের? এর দায় কি কমিশনের নয়?

তবে অনেকে আবার বলছেন, নিরাপত্তা ব্যবস্থা থেকে ভোটের তদারকি নির্বাচন কমিশন করলেও গণতন্ত্রের এই উৎসবে মূল ভূমিকা পালন করেন সাধারণ মানুষই। তাই কমিশনের পাশাপাশি সন্ত্রাস মুক্ত পরিবেশ তৈরি করতে সাধারণ মানুষের ঐক্যবদ্ধতাও জরুরি। ফলে দ্বিতীয় দফার ভোটের শেষে কমিশন ব্যর্থ নাকি সফল! এই প্রশ্নের মাঝেও তৃতীয় দফার ভোটে এক সাধারণ মানুষের মৃত্যুকে ঘিরে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে বড়সড় প্রশ্নচিহ্ন তৈরি হয়েছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!