এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > জাতীয় নাগরিকপঞ্জী নিয়ে বিতর্কের মাঝেই বড় ঘোষণা মুখ্য নির্বাচনী কমিশনারের

জাতীয় নাগরিকপঞ্জী নিয়ে বিতর্কের মাঝেই বড় ঘোষণা মুখ্য নির্বাচনী কমিশনারের

উঃ পূঃ ভারতের অসম রাজ্যে বহু বিতর্কিত জাতীয় নাগরিক পঞ্জী প্রকাশিত হয়েছে। এরপরেই জানা গিয়েছে ৪০ লক্ষ মানুষের নাম জাতীয় নাগরিক পঞ্জী থেকে খারিজ হয়ে গিয়েছে। এই ঘটনা স্বভাবতই দেশের রাজনৈতিক তরজা চরমে পৌঁছেছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এই ঘটনার সমর্থনে এবং বিরোধীতায় তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে সোচ্চার হয়েছে। নাগরিকত্ব বিতর্কে এবার যোগ হলো ভোটাধিকার বিতর্ক। এর ফলে স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠছে তাহলে কী জাতীয় নাগরিক পঞ্জী থেকে বাদ পড়া ৪০ লক্ষ মানুষ ভোট দানের অধিকার থেকেও বঞ্চিত হলো !

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

যদিও এনআরসি খসড়া তালিকা প্রকাশিত হওয়ার পরেই রেজিস্ট্রার জেনারেল শৈলেশ জানালেন ভারতের নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পূর্ন পৃথক সংস্থা পরিচালনা করে। তাই তিনি ঐ ৪০ লক্ষ মানুষ  ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন না বিরত থাকবেন সেই বিষয়ে কোনো সুনির্দিষ্ট মন্তব্য করতে তিনি আগ্রহ প্রকাশ করেননি।

অন্যদিকে মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওপি রাওয়াত জানালেন শুধু মাত্র ভারতীয় নাগরিকদেরই ভোটাধিকার প্রয়োগের অধিকার রয়েছে। তাই তালিকায় যাঁদের নাম নেই তাঁরা ভোট দিতে পারবেন না। জানা যাচ্ছে এই এই বিষয়ে অসমের মুখ্য নির্বাচন অধিকর্তার কাছে একটি রিপোর্ট চেয়ে পাঠানো হয়েছে। আগামী ৭- ১০ দিনের মধ্যে এই রিপোর্ট পেশ করা হবে। আর তারপরেই এই প্রসঙ্গে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

এদিকে এই জাতীয় নাগরিক পঞ্জী নিয়ে ইতিমধ্যেই রিরোধীরা সরব হয়েছেন। তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো তথা পরশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ‘ডিভাইড অ্যান্ড রুল’ নীতি চালানোর অভিযোগ আনলেন। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীও দেশের এই বিতর্কিত পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার জন্যে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!