এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > এম্বুলেন্স কাণ্ডে প্রশান্ত কিশোরকে নিয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন দিলীপ ঘোষ

এম্বুলেন্স কাণ্ডে প্রশান্ত কিশোরকে নিয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন দিলীপ ঘোষ

বিজেপি বনাম তৃণমূলের রাজনৈতিক যুদ্ধ বরাবরই সংবাদ শিরোনামে এসেছে। দু’দলই একে অপরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় অভিযোগের ডালি নিয়ে হাজির করেছে। বর্তমানে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব থেকে রাজ্য নেতৃত্ব- পদ্ম শিবিরের বিরুদ্ধে বাংলা সহ দেশজুড়ে একটাই অভিযোগ, ধর্মের বিচারে দেশভাগ করতে চাইছে বিজেপি। আর তাই দেশের অবিজেপি রাজনৈতিক শিবির ছাড়াও সাধারণ জনগণ থেকে বিশিষ্টজনেরা প্রত্যেকেই বিজেপির বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছে। তবে সম্প্রতি রাজ্যের বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের সভা থেকে অ্যাম্বুলেন্স ঘোরানোর ঘটনাটি নিয়ে তুমুল আলোচনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

সম্প্রতি, রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের একটি সভা ছিল কৃষ্ণনগরে। সেই সভাতেই একটি এম্বুলেন্স ঢুকে পড়ে এবং দিলীপ ঘোষ তাকে অন্য রাস্তা দিয়ে যাওয়ার কথা বলে। অ্যাম্বুলেন্সকে অন্য রাস্তায় যাওয়ার কথা বলায় দিলীপ ঘোষ চূড়ান্তভাবে সমালোচিত হন রাজনৈতিক মহলে। অন্যদিকে, দিলীপ ঘোষের অভিযোগ, কৃষ্ণনগরের সভা ভণ্ডুল করার জন্য তৃণমূলের ভোট কৌশলী প্রশান্ত কিশোর পরিকল্পনামাফিক তাঁর সভা ভঙ্গ করার জন্যই একটি অ্যাম্বুলেন্স পাঠিয়েছিল। এলাকার তৃণমূল নেতৃত্ব সম্পূর্ণ প্রশান্ত কিশোরের কথা অনুযায়ী এই প্ল্যান অনুযায়ী কাজ করেছে।

এদিকে, দেশের নাগরিকত্ব আইন এর বিরুদ্ধে যখন পশ্চিমবঙ্গসহ সারাদেশ তুমুল বিরোধিতায় নেমেছে, সেখানে এখন কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বও বাংলার দিকে দিকে নাগরিকত্ব আইন এর সমর্থনে মিছিল করা শুরু করেছে। এরকমই একটি মিছিল ছিল কৃষ্ণনগর রাজবাড়ি থেকে জেলা প্রশাসনিক ভবন পর্যন্ত। যেখানে রাজ্য বিজেপির দলীয় নেতাকর্মীরা পা মেলান। মিছিল শেষে জেলার প্রশাসনিক ভবনের সামনে বিজেপির পক্ষ থেকে একটি মিটিং করা হয় এবং সেই মিটিংয়ে হঠাৎই পৌঁছায় একটি অ্যাম্বুলেন্স। বিজেপি কর্মী সমর্থকরা ভিড় করে দাঁড়িয়ে থাকায় অ্যাম্বুলেন্সটি এগোতে পারছিল না। এমনকি বিজেপি কর্মীরা অ্যাম্বুলেন্স যাবার জন্য রাস্তা দেননি বলে জানা গেছে। ঠিক সেসময় সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘এখান দিয়ে অ্যাম্বুল্যান্স যেতে দেওয়া যাবে না। লোকজন রাস্তায় বসে রয়েছেন। ডিস্টার্ব হয়ে যাবে। গাড়ি ঘুরিয়ে অন্য দিক দিয়ে নিয়ে যান।’

দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্যটি ক্রমশ সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে যায়। অ্যাম্বুলেন্স ঘোরানোর প্রসঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীরা চূড়ান্ত সমালোচনা করেন। এরকম একটি ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশও তৎপরতা গ্রহণ করেছে। সূত্রের খবর, এব্যাপারে দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ করা হয়েছে। অন্যদিকে, রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ অভিযোগ জানিয়েছেন, ‘তৃণমূলের নির্বাচনী স্ট্র্যাটেজিস্ট প্রশান্ত কিশোর কৃষ্ণনগরের সভাস্থলে ওই অ্যাম্বুল্যান্স পাঠাতে বলেন। পুরো ঘটনাটিই প্রশান্ত কিশোরের কথাতেই রীতিমতো ছক কষে ঘটানো হয়েছে।’

দিলীপ ঘোষের অভিযোগের ভিত্তিতে এখনো পর্যন্ত তৃণমূলের পক্ষ থেকে কোনো রকম প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি। অন্যদিকে, এই ঘটনাটির জন্য দিলীপ ঘোষ সোশ্যাল মিডিয়ায় চূড়ান্তভাবে ট্রোল হতে শুরু করেছেন। ঘটনায় চূড়ান্ত বিরক্তি প্রকাশ করেছেন তিনি। এ ব্যাপারে রাজনৈতিক মহলের একাংশের মত, এই মুহূর্তে সারাদেশে বিজেপি শিবির যথেষ্ট কোণঠাসা অবস্থায় রয়েছে এন আর সি প্রসঙ্গক্রমে। পশ্চিমবাংলাতেও তার হেরফের কিছু হয়নি। এই অবস্থায় পদ্ম শিবিরের সভাপতি দিলীপ ঘোষের একটি কথাই তার অসহযোগিতা প্রকাশ করেছে, যা নিয়ে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব অস্বস্তিতে। আপাতত পরিস্থিতির ওপর নজর রেখেছে রাজনৈতিক মহল।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!