এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > কেন ফিরহাদ হাকিমের দমবন্ধ অবস্থা ‘ফাঁস’ করলেন দিলীপ ঘোষ – সরগরম রাজ্য-রাজনীতি

কেন ফিরহাদ হাকিমের দমবন্ধ অবস্থা ‘ফাঁস’ করলেন দিলীপ ঘোষ – সরগরম রাজ্য-রাজনীতি


লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল 22 এবং বিজেপি 18 টি আসন পাওয়ার পরই বাংলায় গেরুয়া শিবিরের শক্তিবৃদ্ধি হয়। ফলে, তৃণমূলের পালে হাওয়া কমতে শুরু করে দাবি ওঠে বিভিন্ন মহলে। বঙ্গ বিজেপির চাণক্য মুকুল রায়ের হাত ধরে তৃণমূলের দখলে থাকা একাধিক পৌরসভা, একাধিক বিধায়ক, পঞ্চায়েত, জেলাপরিষদ বিজেপির দখলে চলে আসে। তবে লোকসভা নির্বাচনের পরবর্তী সময় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার হিড়িক লাগলেও, বর্তমানে অনেক দলত্যাগী জনপ্রতিনিধিরাই ফের তৃণমূলে ফিরে আসতে শুরু করেছেন।

বস্তুত, সম্প্রতি নৈহাটি পৌরসভায় যে সমস্ত কাউন্সিলররা তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন, তাঁরা আবার তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। আর এরফলে কিছুটা হলেও উজ্জীবিত হয়েছে ঘাসফুল শিবির। এদিন এই প্রসঙ্গে রাজ্যের পুরমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেতা ফিরহাদ হাকিম বলেন, “বিজেপিতে এখন দমবন্ধ অবস্থা। আর সেই কারণেই যারা তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে গিয়েছিলেন, তারা আবার তৃণমূলে ফিরে আসছেন। ভয়-ভীতি দেখিয়ে অনেক কাউন্সিলরকে দলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।”

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তিনি আরও বলেন, “কিন্তু তাঁরা বুঝতে পেরেছেন তৃণমূলই তাঁদের আসল পরিবার। বাংলার সংস্কৃতির সঙ্গে তাঁরা খাপ খাওয়াতে পারছিলেন না। সেই কারণেই ফের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরেছেন।” তবে ফিরহাদ হাকিম বিজেপিকে কটাক্ষ করে এই ধরনের মন্তব্য করলেও তার পাল্টা দিয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও। সূত্রের খবর, এদিন বারুইপুরে এক অনুষ্ঠানে দিলীপ ঘোষ বলেন, “বিজেপির কর্মযজ্ঞ দেখে দলে দলে মানুষ যোগ দিচ্ছে। তৃণমূলে এখন পড়ন্ত বেলা। কিছুদিন পর দেখে নেবেন কেউ থাকবে না।”

দিলীপবাবু আরও বলেন, “আসলে তৃণমূল ছেড়ে দলে দলে লোক বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় ফিরহাদ হাকিমেরই এখন দমবন্ধ অবস্থা। তাই সত্যিটা ধামাচাপা দিতে বিজেপিতে দমবন্ধ অবস্থা বলে উনি বাহবা নেওয়ার চেষ্টা করছেন।” অন্যদিকে দক্ষিণ 24 পরগনা জেলা তৃণমূলের প্রাক্তন সভাপতি তথা তৃণমূলের প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায় দলে আসায় বিজেপির অনেক লাভ হবে বলেও এদিন জানিয়ে দেন দিলীপ ঘোষ। সব মিলিয়ে বাংলায় লোকসভা নির্বাচনের পরবর্তী সময় থেকে ঘর ওয়াপসিকে ঘিরে এখন তৃণমূল বনাম বিজেপির তরজায় সরগরম রাজ্য রাজনীতি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!