এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপি-শাসিত রাজ্য পারলে বাংলা কেন পেট্রল-ডিজেলের সেস-ভ্যাট তুলতে পারে না? দিলীপের প্রশ্ন

বিজেপি-শাসিত রাজ্য পারলে বাংলা কেন পেট্রল-ডিজেলের সেস-ভ্যাট তুলতে পারে না? দিলীপের প্রশ্ন

পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধিতে বিরোধীদের সঙ্গে সমান উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তাহলে তিনি কেন  পেট্রোপণ্যের উপর থেকে সেস-ভ্যাট তুলে দিচ্ছেন না রাজ্যে? এমনটাই নেত্রীর উদ্দেশ্যে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলের রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সঙ্গে যুক্তিতে জানালেন,বিজেপি শাসিত  মহারাষ্ট্র, রাজস্থান,গুজরাতের মতো রাজ্যগুলো থেকে পেট্রেপণ্যের উপর থেকে সেস-ভ্যাট তুলে দেওয়ায় ওসব রাজ্যে পেট্রোপণ্যের মূল্য অপেক্ষাকৃত কম। রাজ্যবাসীর নাঝেহাল অবস্থার কথা ভেবে এই নীতি কেন অনুসরণ করছেন না মুখ্যমন্ত্রী?  অথচ এই নেত্রীই বিরোধী থাকাকালীন পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি হলে বাম সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সরব হতেন। সেস-ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবী জানাতেন। তাঁর সেই মানবদরদী মূর্তি কোথায় গেল রাজ্যের ক্ষমতায় আসার পর? কেন তিনি জনগনের স্বার্থে রাজ্যের প্রাপ্য কর কমাচ্ছেন না? প্রশ্ন রাজ্য বিজেপির। সঙ্গে তিনি এটাও দাবী করেন, আসলে নেত্রী ক্ষমতায় এসে নিজের অবস্থানটাই বদলে ফেলেছেন।

শুধু তৃণমূল নয়,একই ইস্যুকে হাতিয়ার করে রাজ্য বিজেপির সভাপতি কংগ্রেসের বিরুদ্ধেও আক্রমণ শানালেন। দাবীতে জানালেন,ইউপিএ সরকারের শাসনকালেও এরকম পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির জেরে অসুবিধায় পড়তে হয়েছিল আমজনতাকে। যুক্তিতে তুলে ধরেলেন পরিসংখ্যানের রিপোর্ট। বললেন,মনমোহন সিং এর আমলে অর্থাৎ ২০০৪ সালে লিটার পিছু পেট্রোলের দাম ছিল ৩৩ টাকা ৭১ পয়সা। ইউপিএ সরকার ক্ষমতা থেকে যাওয়ার সময় তা বেড়ে হয়েছিল ৭১ টাকা ৪১ পয়সা। হিসাব বলছে,প্রতি বছর লিটার প্রতি পেট্রোলের দাম গড়ে ৩ টাকা ৮০ পয়সা হারে বেড়েছে। এর সঙ্গে তুলনায় টানলেন বিজেপি সরকারের প্রসঙ্গ। বর্তমানে মোদীজির শাসনে পেট্রোলের দাম বছরে মাত্র ২ টাকা হারে বেড়েছে। এরপরও কংগ্রেস কীভাবে পেট্রোপন্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ করতে পারে! বিষ্ময় প্রকাশ করলেন দিলীপ বাবু।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

একইসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন বাম-কংগ্রেসের ডাক বনধকে পরোক্ষভাবে সমর্থন করেছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। শাসকদল ধর্মঘটে অংশগ্রহণ না করলেও একই ইস্যুতে কাল রাস্তায় প্রতিবাদ মিছিল বার করে প্রমাণ করে দিয়েছে যে তাঁরা বিজেপির বিরুদ্ধেই আছে। প্রশাসন গতকাল রাস্তায় অতিরিক্ত বাস নামানোর কথা বললেও রাস্তায় সে বাস দেখা যায়নি। ডিপো থেকে বাসগুলো বের করে রাস্তায় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছিল। এমনকি স্কুল-কলেজগুলোতেও তালা ঝুলছিল কাল। গতকাল রাজ্যের সার্বিক ছবি এটাই প্রমাণ করেছে যে তৃণমল কংগ্রেস এবং বামেদেরই সমর্থন করেছে। দাবীতে জানালেন দিলীপ ঘোষ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!