এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > লোকসভায় কেন্দ্রীয়বাহিনী, ছাপ্পা হবে না, মানুষ ভোট দেবে, দেখব তৃণমূলের ক্ষমতা: দিলীপ

লোকসভায় কেন্দ্রীয়বাহিনী, ছাপ্পা হবে না, মানুষ ভোট দেবে, দেখব তৃণমূলের ক্ষমতা: দিলীপ

প্রকাশ্যে নিজ মুখে স্বীকার করুন বা নাই করুন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলে  বেজায় সন্তুষ্ট । একথার প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে তাঁর বক্তব্য থেকেই। খড়গপুরে একটি সাংবাদিক সম্মেলনের আয়জন করে দিলীপ বাবু বললেন, ” পশ্চিমবাংলায় পরিবর্তন করতে গেলে কাঁটা বিছানো পথেই হাঁটতে হবে। আর বিজেপি তৈরি কাঁটা বিছানো পথে হেঁটেই রাজ্যে পরিবর্তন আনতে।সদ্য সমাপ্ত রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপি লড়াই দিয়েছে। ময়দান থেকে আমাদের কর্মীরা পিছু হটেনি। তৃণমূল যে পথ দেখিয়েছে, আমরা সেই পথেই মোকাবিলা করেছি। সন্ত্রাস, হিংসা যেমন ছিল, আমাদের কর্মীরা অসম সাহসের সঙ্গে তার মোকাবিলা করে গিয়েছে। তার ফলেই অন্তত ৮-৯টি জেলাতে আমরা ভালো ফল করেছি।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

ভবিষ্যতেও আমরা আরও ভালো ফল করব।” আগামী বছরে লোকসভা নির্বাচনে দলের কার্য পরিকল্পনা প্রসঙ্গে তিনি বললেন, “আমাদের এবার টার্গেট লোকসভা। পঞ্চায়েত ভোটে যে প্রতিকূলতার সঙ্গে আমরা লড়েছি, তা থেকে শিক্ষা নিয়ে লোকসভাতে আরও ভালো ফল করব। আমরা পঞ্চায়েতে ৩৮ হাজার প্রার্থী দিয়েছিলাম। শেষ পর্যন্ত ৩০ হাজার প্রার্থীকে টিকিয়ে রাখতে পেরেছিলাম। তার মধ্যে ৬ হাজার প্রার্থী জিতেছে। এই সাফল্য কম কীসের। এই সাফল্যের ধারা বজায় রেখেই আমরা ভবিষ্যেত আরও এগবো। পঞ্চায়েত নির্বাচনে একটা উদাহারণ আমরা তুলে ধরলাম। এরপর ২০১৯-এর লোকসভা, তারপর ২০২২-এর বিধানসভা পরিবির্তনের লড়াই-এ আরও ব্যাপকতা দেখতে পাবেন আপনারা।” আর নির্বাচনের নিরাপত্তা ব্যবস্থার উল্লেখ করে বিজেপির রাজ্য সম্পাদক বললেন, “আমাদের এবার টার্গেট লোকসভা। পঞ্চায়েত ভোটে যে প্রতিকূলতার সঙ্গে আমরা লড়েছি, তা থেকে শিক্ষা নিয়ে লোকসভাতে আরও ভালো ফল করব। আমরা পঞ্চায়েতে ৩৮ হাজার প্রার্থী দিয়েছিলাম। শেষ পর্যন্ত ৩০ হাজার প্রার্থীকে টিকিয়ে রাখতে পেরেছিলাম। তার মধ্যে ৬ হাজার প্রার্থী জিতেছে। এই সাফল্য কম কীসের। এই সাফল্যের ধারা বজায় রেখেই আমরা ভবিষ্যেত আরও এগবো। পঞ্চায়েত নির্বাচনে একটা উদাহারণ আমরা তুলে ধরলাম। এরপর ২০১৯-এর লোকসভা, তারপর ২০২২-এর বিধানসভা পরিবির্তনের লড়াই-এ আরও ব্যাপকতা দেখতে পাবেন আপনারা।” তবে নির্বাচনে নিরাপত্তার ব্যবস্থা কথা উল্লেখ করে দিলীপ বাবু বললেন, “লোকসভা হোক বা বিধানসভা ভোট, তখন কেন্দ্রীয়বাহিনী দিয়ে ভোট হবে। পুলিশ দিয়ে ভোট হবে না, ছাপ্পা হবে না, মানুষ ভোট দেবে, তখনই দেখব তৃণমূল কংগ্রেসের কত ক্ষমতা। তিনি বলেন রাজ্যের ৪০ শতাংশ মানুষ ভোট দিতে পারল না, তারা চুপ করে থাকবেন না, বুমেরাং হবেই আসন্ন লোকসভা ও বিধানসভায়।” একই সাথে খানিক নির্বাচনী বিশেষজ্ঞের ভুমিকায় অবতীর্ণ হয়ে আগামী দিনের নির্বাচন প্রসঙ্গে একপ্রকার নালিশ করেই তিনি বললেন, ”  তৃণমূল কংগ্রেসও জানে সত্যিকারের ভোট হলে তারা জিতবে না। সেই কারণেই সন্ত্রাসের আবহ তৈরি করে পঞ্চায়েত ভোট করল তারা। নিরাপত্তাবিহীনভাবে নিজেদের ক্যাডার দিয়ে ভোট করিয়ে নিতেই তৃণমূল কংগ্রেস এইসব ফন্দিফিকির করল।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!