এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দিলীপ ঘোষের পর এবার মুখ্যমন্ত্রীর নামে কুরুচিকর মন্তব্য করায় থানায় অভিযোগ দায়ের বিজেপি হেভিওয়েট নেতার নামে

দিলীপ ঘোষের পর এবার মুখ্যমন্ত্রীর নামে কুরুচিকর মন্তব্য করায় থানায় অভিযোগ দায়ের বিজেপি হেভিওয়েট নেতার নামে

রাজ্যরাজনীতিতে শোরগোল ফেলে এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যেপাধ্যায়ের নামে কুরুচিকর মন্তব্য করে বিতর্কে জড়ালেন বিজেপির রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসু। মন্তব্য করার ২৪ ঘন্টা কাটতে না কাটতেই সায়ন্তবাবুর বিরুদ্ধে বংশীবিহারী থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি অম্বরীশ সরকার।

পাশাপাশি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নামে এধরণের কটু মন্তব্য করার জন্যে বিজেপি নেতৃত্বকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার দাবীও করে তৃণমূল। গোটা ঘটনায় বেশ চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রাজনৈতিকমহলে। তবে বিজেপির তরফ থেকে এ অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

দলীয় সূত্রের খবর,দিন দুয়েক আগে বিভিন্ন দাবীদাওয়াকে সামনে রেখে রাজ্যসরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গঙ্গারামপুর মহাকুমাশাসক অফিস চত্বরে আইন অমান্য আন্দোলন করে বিজেপি। সেই কর্মসূচিতে বিজেপি-র রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসুর পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন অন্যান্য রাজ্য এবং জেলার নেতৃত্বরা। সেখানেই বক্তব্য রাখতে গিয়ে সদ্য সমাপ্ত পড়শি রাজ্যগুলোর বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির খারাপ ফলাফল নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর অতিরিক্ত উচ্ছ্বাস নিয়ে কটাক্ষ করেন সায়ন্তন বাবু।

তিনি বলেন, “তিনটি রাজ্যে BJP  হেরে গেছে। তা নিয়ে দিদি আহ্লাদে আটখানা। তিড়িংবিড়িং করে লাফাচ্ছেন। তাই আমাদের রাজ্য সভাপতি বলেছেন, যে অন্য বাড়িতে ছেলে হলে যারা নাচতে যায় ঠিক তাদের মত আচরণ হচ্ছে। তা নিয়ে কী দুঃখ। আমাদের হিজড়া বলেছে হিজড়া বলেছে। তা হিজড়াকে হিজড়া বলবে না তো কী বলবে?”

জনসমক্ষে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে এ ধরণের অশালীন মন্তব্যে করার খবর আগুনে বাতাস লাগার মতো ছড়িয়ে যায়। ক্ষেপে ওঠেন তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা। এরপরই সায়ন্তন বসুর নামে বংশীহারী থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয় তৃণমূল যুব কংগ্রেসের পক্ষ থেকে।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে তৃণমূল যুব কংগ্রেস জেলা কার্যকরী সভাপতি অম্বরীশ সরকার, বিজেপি রাজ্যনেতৃত্বের খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নামে এধরনের অশালীন মন্তব্য করার জন্যে তীব্র নিন্দা করলেন। বললেন,”যে শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে তা সমস্ত নারীজাতির কাছে অপমান। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই।”এবং মুখ্যমন্ত্রীকে এভাবে অপমান করার জন্যে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে এমনটাও জানালেন তিনি।

শুধু তাই নয়,যাঁরা সায়ন্তন বসুকে এই সভায় এনেছিলেন,তাঁদের নিঃশর্তে ক্ষমা চাওয়ার দাবীও করলেন তিনি। তবে তৃণমূলের এ দাবী মানতে নারাজ গেরুয়াশিবির। বিজেপি-র জেলা সভাপতি শুভেন্দু সরকার জানালেন,সেদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে কোনো কথাই বলেননি সায়ন্তন বাবু্। যা কিছু বলা হয়েছিল সবই তৃণমূলের বিরুদ্ধে। আর এটা নতুন কিছু নয়৷ রাজ্যের সব জেলাতেই বিজেপি নেতা-কর্মীদর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করেছে শাসকদল।

 

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সবটাই লোকসভা ভোটকে টার্গেট করে বিজেপির ভাবমূর্তি নষ্ট করার অভিসন্ধি নিয়েই করছে তৃণমূল,এমনটাই পাল্টা অভিযোগ করলেন এই বিজেপি নেতা। অন্যদিকে,তৃণমূলের বয়ানের উপর ভিত্তি করে মামলা শুরু হয়েছে বলেই জানালেন পুলিশ সুপার নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠী। পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!