এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > রাজনৈতিক মতভেদ থাকলেও, ‘অপসংস্কৃতি’ প্রশ্নে একমত হলেন মমতা ব্যানার্জি-দিলীপ ঘোষ

রাজনৈতিক মতভেদ থাকলেও, ‘অপসংস্কৃতি’ প্রশ্নে একমত হলেন মমতা ব্যানার্জি-দিলীপ ঘোষ

শুক্রবার কলকাতায় নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে দক্ষিণ ২৪ পরগনার কেবল অপারেটারদের সম্মেলনে মুখ্যমন্ত্রী নিজের বক্তব্যে জানালেন,”আজকাল যা দেখানো হয়… হয় কারও বাবার পরিচয় জানা নেই… এটা একটা ফেনোমেনা, আর নয়তো তিনটে বউ। আর নয়তো কেউ কাউকে বিষ খাইয়ে দিচ্ছে, কূটকচালি করছে। যেন কৈকেয়ী-মন্থরার যুগ। এই সব জিনিস খুব খারাপ প্রভাব ফেলছে মানুষের মনে। যত খারাপ খারাপ জিনিসগুলো যারা জানে না তাদের মনে ঢুকিয়ে দিচ্ছে।”

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যে এই ‘তিন বউ’ ইস্যু’র উল্লেখ দেখে এই মুহূর্তে রাজ্যে তাঁর প্রধান প্রতিপক্ষ বিজেপি দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ খানিক ব্যাঙ্গের সুরেই বললেন, ”শুভ বুদ্ধির উদয় হয়েছে। সঙ্ঘ পরিবার দীর্ঘদিন যে সংস্কৃতি রক্ষার কথা বলে আসছে সে কথা ওনার মুখে শুনে ভাল লাগল। ওনার হাতে সংস্কৃতির নামে অপসংস্কৃতির ক্ষমতা রয়েছে। সেটা ব্যবহার করলে ভাল হয়।” শুধু এইটুকুই নয় দিলীপ বাবু এদিন কটাক্ষ করে বললেন, ”ক’দিন আগেই রামের পুজো করেছেন। তারই ফল। শুভবুদ্ধির উদয় হয়েছে। এখন মুখ্যমন্ত্রীর মনে হচ্ছে অপসংস্কৃতির প্রতিবাদ হওয়া দরকার।” এদিন দিলীপ বাবু দাবি করলেন রাজ্যে আসন্ন নির্বাচনের আগেই নীতি ভ্রষ্টতার জন্যে তৃণমূল কংগ্রেস এখনও অবধি যথেষ্ট নিন্দিত ও সমালোচিত। তাই রাজ্যের শাসকদলের সুপ্রিমো মুখ্যমন্ত্রীর এখন রাজ্যবাসী’কে ‘নীতি কথা’ শোনানোর প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। মুখ্যমন্ত্রী’র ভাষণের তীব্র সমালচনা করে এরপর দিলীপবাবু বলেন,”নীতি কথা শোনানোর আগে নিজেদের নীতি পালন করা দরকার। রাজ্যে দিকে দিকে নারী নির্যাতন চলছে। ছাত্রছাত্রীরা পরীক্ষায় ফেল করেও পাশ করানোর দাবি জানাচ্ছে। সে সব মেনে নিচ্ছে সরকার। এর পরে নীতির কথা বলে কি আদৌ লাভ রয়েছে?” নিজের উত্থাপন করার প্রশ্নের জবাব নিজেই দিয়ে রাজ্য বিজেপির সভাপতি জানালেন , ”টিভি সিরিয়াল প্রসঙ্গে যে কথা তিনি বলেছেন তা আরও আগে বলা দরকার ছিল। ওনার যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। তিনি চাইলে অনেক বদল আনতে পারেন। আশা করব শুধু মুখের কথাতেই গোটাটা থেমে থাকবে না।”

Top
error: Content is protected !!