এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > দিদির কেষ্টার গড় থেকেই কাটমানি ফেরত শুরু হল,সাথেই উঠলো একগুচ্ছ প্রশ্ন

দিদির কেষ্টার গড় থেকেই কাটমানি ফেরত শুরু হল,সাথেই উঠলো একগুচ্ছ প্রশ্ন

লোকসভা নির্বাচনে দলের ভরাডুবির পেছনে তৃনমূলের নেতাকর্মীদের দুর্নীতিই যে প্রধানভাবে দায়ী, তা বুঝতে বাকি নেই তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। আর তাই তো গত 18 জুন নজরুল মঞ্চে দলের কাউন্সিলরদের নিয়ে বৈঠকে কেউ কোন কাটমানি নিলে তা সাধারণ মানুষকে ফেরত দিয়ে দিন বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী।

আর তারপরই কাটমানি নেওয়া অভিযুক্ত তৃণমূল নেতাদের বাড়ি ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখান সাধারণ মানুষেরা। কিন্তু সেই ভাবে এখনও পর্যন্ত কোনো তৃণমূলের নেতা কাটমানি ফেরত না দেওয়ায় চাঞ্চল্য তৈরি হয়। তবে এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রিয় ভাই অনুব্রত মণ্ডল ওরফে কেস্টর গড় থেকেই কাটমানি ফেরতের প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেল।

প্রসঙ্গত, বীরভূমের সিউড়ির ছাতরা গ্রামের 100 দিনের শ্রমিকরা তাদের টাকা ঠিকমতো পেতেন না। অভিযোগ, শাসকদলের নেতা ত্রিলোচন মুখোপাধ্যায় তাদের সেই টাকা ব্যাংকে জমা পড়লেই সই করে রাখা উইথড্রাল স্লিপ দিয়ে তা তুলে নিতেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

আর এই ব্যাপারে পুলিশকে জানিয়েও সেইমতো কোন লাভ না হওয়ায় তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী এই ব্যাপারে হুঁশিয়ারি দেওয়ায় সেই ছাতরা গ্রামে গ্রামবাসীরা প্রবল বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। কিন্তু এবার সেই 100 দিনের কাজের সাথে যুক্ত 141 জন গ্রামবাসীকে খাতায় সই করিয়ে প্রত্যেককে 1650 টাকা করে ফেরত দেন তৃণমূল নেতা ত্রিলোচন মুখোপাধ্যায়।

কিন্তু কেন গ্রামবাসীদের এই টাকা তিনি নিয়ে নিয়েছিলেন, সেই ব্যাপারে শাসক দলের এই নেতার গলাতেও শোনা গেল বোলপুরের তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়ের সুর। প্রসঙ্গত, কাটমানির ব্যাপারে মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি পরেই সাংসদ শতাব্দী রায় বলেন, “শুধু নীচুতলার জনপ্রতিনিধিরাই নন, উপর পর্যন্ত অনেকেই এই টাকার ভাগ পান। যারা 1, 2 পার্সেন্ট কাটমানি নিয়েছে, তাদের ধরা হলেও এই কাটমানি কালচার বন্ধ করা যাবে না।”

আর শতাব্দি রায়ের সুরেই সুর মিলিয়ে দলের সব নেতাই এই টাকা নেওয়ার কথা জানতেন বলে জানিয়ে দেন তৃনমূল নেতা ত্রিলোচন মুখোপাধ্যায়। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, কিছুদিন আগেই এই কাটমানি প্রসঙ্গে দলের 99.99 শতাংশ নেতাই সৎ বলে জানিয়েছিলেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

কিন্তু এবার যেভাবে প্রকাশ্যে একজন নেতা কাটমানিতে অভিযুক্ত হয়ে টাকা ফেরত দিয়ে দলের অনেকেই সেই কথা জানতেন বলে জানালেন, তাতে তৃণমূলের অনেক নেতাই এই কাটমানিতে জড়িত, সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত সমালোচক মহলের একাংশ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!