এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > কর্মচারীর ডিএ মেরে, তৃণমূল সরকার মোচ্ছব করে: সরকারি কর্মচারী পরিষদ

কর্মচারীর ডিএ মেরে, তৃণমূল সরকার মোচ্ছব করে: সরকারি কর্মচারী পরিষদ

একদিকে রাজ্য সরকারি কর্মীদের কেন্দ্রীয় কর্মীদের থেকে ৩৯% মহার্ঘ্যভাতা বাকি, নাম নেই ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশের, অন্যদিকে এই সংক্রান্ত মামলায় হাইকোর্টে রাজ্য সরকার স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে রাজ্য সরকারি কর্মীদের কোনো ডিএ বাকি নেই। ফলে তীব্র ক্ষোভে ফুটছেন রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা, আর তার মাঝেই প্রতি বছরের মত এবছরেও ক্লাবগুলিকে সরকারি অনুদান দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে। ফলে শুরু হয়েছে তীব্র বিতর্ক। এই প্রসঙ্গে বিজেপি অধ্যুষিত সরকারি কর্মচারী পরিষদের আহ্বায়ক দেবাশীষ শীল তীব্র ক্ষোভ উগরে দিলেন রাজ্য সরকার তথা মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি।

ক্লাবগুলিকে সরকারি অনুদান দেওয়া নিয়ে নিজের প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে তিনি জানান, সরকারি কর্মচারী, পেনশনভোগীদের ডিএ না দিয়ে সেই টাকায় মোচ্ছব হচ্ছে আর পকেট ভরছে। ২০১১ সালে যখন বামফ্রন্ট সরকার বিদায় নিল তখন ডিএ বাকি ছিল মাত্র ১৬%, আর তার পরের ৬ বছর ধরে মাননীয়া বছরে মাত্র ১ বার করে ডিএ দিচ্ছেন, ফলস্বরূপ এখন আপাতত ৩৯% মহার্ঘ্যভাতা বাকি। আমরা একটা অনুমানিক হিসাব করে দেখেছি যে প্রতি বছর – খেলা, মেলা, আর্টিস্ট ভাতা, প্রশাসনিক বৈঠকের নামে গড়ে ৪,০০০ কোটি টাকা খরচ করে এই সরকার। ওই টাকাটাতে অন্তত ১০% ডিএ মেটানো যেত খুব সহজেই। আর নতুন করে কি বলবো? সাধারণ কর্মচারীদের ক্ষোভ ও দুঃখের মিশেলে একটা স্লোগান খুব ‘পপুলার’ এখন – কর্মচারীর ডিএ মেরে, তৃণমূল সরকার মোচ্ছব করে!

এখানেই না থেমে দেবাশীষ বাবু আরো যোগ করেন, আমাদের কাছে তো কর্মীরা প্রশ্ন করে এই সরকার কাদের সরকার? সাধারণ মানুষের? যদি তাই হবে তবে সরকারি কর্মচারীরা কি সাধারণ মানুষের মধ্যে পরে না? ওহ দুঃখিত! আমরা তো ভুলে গিয়েছিলাম আমরা আবার ‘ঘেউ ঘেউ’ করি, তাই আমরা আবার মানুষ হলাম কবে? তবে এই বঞ্চনার জবাব কর্মীরা একদিন দেবেনই, ক্ষোভের আগুন চারিদিকে, মুখ্যমন্ত্রী একটু বিবেচনা করুন। এরপর মুখ্যমন্ত্রীকে হুঁশিয়ারি দিয়ে দেবাশীষবাবুর বক্তব্য, মাননীয়া মনে রাখবেন সরকারি কর্মচারীদের সংখ্যাটা নেহাত কম নয়! শুধু কর্মচারীদের মাথা গুনবেন না, সাথে তাঁদের পরিবাবারের, আত্মীয়স্বজনদের মাথাগুলোও গুনুন! কেননা তাঁরাও তো অপমানের বদলাটা ভোটের বাক্সেই নেবেন! বিজেপি শাসিত কোনো রাজ্যে তো কর্মীদের ডিএ বাকি নেই, তাহলে বাংলায় এই বঞ্চনা কেন?

** এই খবরে প্রকাশিত মন্তব্য প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিজস্ব নয়, বিজেপি প্রভাবিত সরকারি কর্মচারী পরিষদের আহ্বায়ক মাননীয় শ্রী দেবাশীষ শীলের প্রতিক্রিয়া এখানে তুলে ধরা হল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!