এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দাড়িভিট স্কুল খোলা নিয়ে 4 ঘণ্টার রুদ্ধদ্বার বৈঠক, বড়সড় প্রশ্নের মুখে প্রধান শিক্ষকের ভূমিকা

দাড়িভিট স্কুল খোলা নিয়ে 4 ঘণ্টার রুদ্ধদ্বার বৈঠক, বড়সড় প্রশ্নের মুখে প্রধান শিক্ষকের ভূমিকা

গত কুড়ি সেপ্টেম্বর শিক্ষকের দাবিতে উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে দাড়িভিট স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের আন্দোলনে এবং পুলিশের সাথে পড়ুয়াদের সংঘর্ষে মৃত্যু হয় দুই ছাত্র রাজেশ সরকার এবং তাপস বর্মনের। আর এরপরই গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে অভিযোগ তোলা হয় যে, পুলিশের গুলিতেই মৃত্যু হয়েছে দুই নিরীহ ছাত্রের। এমনকি এই স্কুল বন্ধ করে লাগাতার সিবিআই তদন্তের দাবি জানান তারা।

অন্যদিকে সামনে মাধ্যমিক পরীক্ষার কারণে এই স্কুল খুলতে উদ্যোগী হয় প্রশাসনও। এজন্য একবার স্কুলমাঠে অভিভাবকদের সঙ্গে এক বৈঠক ডাকা হলেও সেখানে প্রশাসন এবং শিক্ষা দপ্তরের কেউ উপস্থিত না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত তা ভেস্তে যায়। কিন্তু এইভাবে আর কতদিন স্কুল বন্ধ থাকবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পরে জেলা শিক্ষা দপ্তর। আর সেই কারণে গতকাল ইসলামপুর বিডিও অফিসের হল ঘরে সেই দাড়িভিট স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা, পরিচালন সমিতির সদস্য, কয়েকজন অভিভাবক, জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক এবং ইসলামপুরের বিডিওকে নিয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে এই বৈঠকের জন্য উত্তর দিনাজপুর জেলার ভারপ্রাপ্ত জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক সুজিত মাইতির তরফে সেই মৃত ছাত্র রাজেশ সরকার এবং তাপস বর্মনের বাবাকে ফোন করে আসতে বলা হলেও তারা সকলেই অনুপস্থিত ছিলেন। কেন তারা আসলেন না এদের এই প্রসঙ্গে মৃত রাজেশ সরকারের বাবা নীলকমল সরকার বলেন, “আমরা নতুন ডিআইকে চিনি না। ফলে তার নাম করে অন্য কেউ ফোন করছে কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত ছিলাম না। তাই এ দিনের মিটিংয়ে যাইনি।”

তবে এই স্কুল খোলার ব্যাপারে প্রশাসন আলোচনা চাইলে আলোচনার দরজা খোলা আছে বলেও এদিন জানান তিনি। কিন্তু গতকালের এই বৈঠকে ঠিক কি কোনো রফাসূত্র বেরোলো? সূত্রের খবর, এই বৈঠকে পরিচালন সমিতির কয়েকজন সদস্য এবং অভিভাবকেরা পুর ঘটনা নিয়ে এই দাড়িভিট স্কুলের প্রধান শিক্ষকের ভূমিকার কঠোর সমালোচনা করেন।

জানা যায়, পরিচালন সমিতির সদস্যদের উপস্থিতিতে শিক্ষক নিয়োগে স্থগিতাদেশ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও কেন তার একদিন পরেই ফের নিয়োগ নিয়ে তৎপরতা দেখানো হলো এই বিষয়ে তারা এদিন প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন সেই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের উদ্দেশ্যে। যদিও বা এইরকম কোন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি সেই প্রধান শিক্ষক বলে জানান এই বৈঠকে উপস্থিত অভিভাবক শান্তি বিশ্বাস।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে সোমবার 4 ঘণ্টার এই রুদ্ধদ্বার বৈঠকে তেমন কোনো ফলপ্রসূ আলোচনা না হওয়ায় ফের মঙ্গলবার সাড়ে দশটায় সেই দাড়িভিটে স্কুল খোলার ব্যাপারে সকলের সাথে একটি বৈঠক করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে আজকের এই বৈঠক থেকে গ্রামবাসীদের তরফে স্কুল খোলার ব্যাপারে প্রশাসন আদৌ সবুজ সঙ্কেত পায় কি না সে দিকেই তাকিয়ে ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!