এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > স্যাটে ডিএ মামলার শুনানি – আজেকের শুনানির পর মিলে যাওয়ার পথে দুই মামলা?

স্যাটে ডিএ মামলার শুনানি – আজেকের শুনানির পর মিলে যাওয়ার পথে দুই মামলা?

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া এক্সক্লুসিভ – রাজ্যের লক্ষ লক্ষ সরকারি কর্মচারী, শিক্ষক ও সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত কর্মচারীদের চোখ আপাতত কলকাতা হাইকোর্টে ও স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইবুন্যাল বা স্যাটে। কেননা, গত ৩১ শে আগস্ট কলকাতা হাইকোর্ট এক ঐতিহাসিক রায়ে জানিয়ে দেয়, ডিএ রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের সাংবিধানিক অধিকার। কিন্তু, সেই ডিএর হার কি হবে বা তা বছরে কতবার করে দেওয়া হবে – তা নির্ধারণ করবে স্যাট। এই নিয়ে পুনরায় স্যাটের কাছে আবেদন করে দুই মামলাকারী সংগঠন কনফেডারেশন অফ স্টেট গভর্নমেন্ট এমপ্লয়ীজ ও ইউনিটি ফোরাম।

সেই মামলার শুনানি শেষ হয়ে গেলেও, রাজ্য সরকার নিজেদের দাবির সমর্থনে কোনো নথি জমা দিতে পারে নি। রাজ্য সরকারের যুক্তি ছিল, প্রয়োজনীয় নথি ‘মিসপ্লেসড’ হয়ে গেছে, তাই অতিরিক্ত সময় চায়। কিন্তু, সেই সময় দিতে রাজি ছিল না স্যাট – ফলে রাজ্য সরকার রিভিউ পিটিশন করে কলকাতা হাইকোর্টে। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতিরা সেই মামলার শুনানির সময় রাজ্য দাবি উড়িয়ে দিলেও, সেই মামলার রায় এখনও ঘোষণা হয় নি। এদিকে, হাইকোর্টের রায় না আসায় বারবার পিছোতে থাকে স্যাটের মামলার রায়দান।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

অবশেষে আজ ছিল সেই মামলার শুনানি – যেহেতু, হাইকোর্ট এখনও কোনও রায়দান করেনি, তাই স্যাট চেয়েছিল কনফেডারেশন অফ স্টেট গভর্নমেন্ট এমপ্লয়ীজ ও ইউনিটি ফোরামের মামলা আপাতত লিস্টের বাইরে করে দিতে। হাইকোর্টের রায় ঘোষণা হলে – পুনরায় এই নিয়ে আবেদন করতে। কিন্তু, স্যাটের এই নির্দেশিকাতে রাজি হন নি মামলাকারীদের আইনজীবী। তিনি জানান, লিস্টের বাইরে না করে নতুন করে এই মামলার শুনানির দিন দেওয়া হোক আগামী ১৩ ই মার্চ। এদিকে, ডিএ নিয়ে অপর একটি মামলায় অপর সরকারি কর্মচারী সংগঠন সরকারি কর্মচারী পরিষদের মামলার দিনও ওই ১৩ ই মার্চই নির্ধারিত হয়ে আছে।

ফলে, স্যাটের আজকের সিদ্ধান্তের পরে ডিএ নিয়ে দুই হেভিওয়েট মামলা একইদিনে পরে গেল – যা এই মামলায় রাজ্য সরকারের উপর স্বাভাবিক নিয়মেই চাপ বাড়িয়ে দিল। এই প্রসঙ্গে সরকারি কর্মচারী পরিষদের রাজ্য আহ্বায়ক দেবাশীষ শীল জানান, স্যাটের সিদ্ধান্তকে স্বাগত – আমরা আগেই চেয়েছিলাম, ডিএ নিয়ে রাজ্য সরকারের উপর চাপ বাড়াতে দুটি মামলা একইসাথে হোক। অবশেষে তা ঘটনাক্রমে একইদিনে এসে পড়ায় স্বাভাবিকভাবেই রাজ্য সরকারের উপর চাপ আরও বাড়ল। আশা করা যায় স্যাট, রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের স্বার্থরক্ষায় মানবিক রায়ই দেবে।

অন্যদিকে, কনফেডারেশন অফ স্টেট গভর্নমেন্ট এমপ্লয়িজের অন্যতম শীর্ষনেতা সুবীর সাহা জানান, এখনও পর্যন্ত ডিএ নিয়ে হাইকোর্টে হওয়া রিভিউ পিটিশনের রায় প্রকাশিত না হওয়ায়, বোঝায় গিয়েছিল এই মামলার শুনানির দিন পিছোবে। তবে, আশার কথা আজ রাজ্য সরকার সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের তামিলনাড়ু ইলেক্ট্রিসিটি বোর্ডের ডিএ মামলার রায় নিয়ে সওয়াল করতে গেলে স্যাট তা শুনতে রাজি হয় নি। স্যাট স্পষ্ট জানিয়ে দেয়, ইলেক্ট্রিসিটি বোর্ডের কিছু কর্মচারীর এক কিস্তি ডিএ বাকির যে রায় তার সাথে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের ডিএ মামলার কোনো মিল নেই। তাছাড়া, কলকাতা হাইকোর্টের রিভিউ পিটিশনের রায় সামনে না আসায় এখন কিছুই শুনব না। আশা করা যায় ১৩ তারিখের শুনানির আগে আদালতের রায় সামনে আসবে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!