এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > হাইকোর্টে আজ ডিএ মামলার শেষ শুনানি, কি হবে রায়? আশায় বুক বাঁধছেন সরকারি কর্মীরা

হাইকোর্টে আজ ডিএ মামলার শেষ শুনানি, কি হবে রায়? আশায় বুক বাঁধছেন সরকারি কর্মীরা

অনেক টালবাহানার পর আজ অবশেষে কলকাতা হাইকোর্টে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের করা ডিএ মামলার শেষ শুনানি হতে চলেছে। কেন্দ্রীয় হারে বেতন ও বকেয়া ডিএ না পেয়ে বনাচানার ক্ষোভে ফুটতে থাকা সরকারি কর্মচারীরা শেষমেশ রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেন। কিন্তু আইনজীবীদের দীর্ঘ কর্মবিরতির জেরে দীর্ঘদিন ধরেই সেই মামলার শুনানি হয় না। এরপর আইনজীবীদের কর্মবিরতি মিটে যেতেই পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই শুনানি শেষ করে ফেলতে চেয়েছিল আদালত – সেই হিসাবে শুনানির জন্য ৩ টি তারিখও নির্দিষ্ট করা হয়। কিন্তু সেইসময় পঞ্চায়েতের বিভিন্ন মামলা নিয়ে ব্যস্ত থাকায় রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত সময় দিতে না পারায় আবার পিছিয়ে যায় শুনানি।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

শেষ পর্যন্ত গত ৩ রা জুলাই এই মামলার শেষ শুনানি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই মুখ্যমন্ত্রী আগামী বছরের ১ লা জানুয়ারী থেকে আরো ১৮% ডিএ এবং ১০% ইন্টিরিম রিলিফ দেওয়ার ঘোষণা করেন। আর সেই প্রসঙ্গ টেনেই কিশোরবাবু আগেরদিন আদালতকে জানান ও ১০% ইন্টিরিম রিলিফ আদতে ৭% ডিএর সমান, তাই রাজ্য সরকার এখনই ১০০% ডিএ দিচ্ছে এবং হিসেবে মত ১২৫% ডিএ দেওয়া হয়ে গেলেই নতুন বেতন কমিশন চালু হবে। কিন্তু বিচারপতিরা স্পষ্ট জানিয়ে দেন, সরকারি কর্মচারীদের দাবি এই পাওনা ৩ বছরের পুরোনো, সুতরাং বঞ্চনার অভিযোগে যে মামলা হয়েছে তার সঙ্গে কিশোরবাবু যুক্তির কোনো সামঞ্জস্য নেই। আর এরপরেই আদালতের ডিভিশন বেঞ্চ এই মামলার শুনানি সমাপ্ত করতে চান। কিন্তু কিশোরবাবু এরপর আদালতের কাছে বিনীত আবেদন করে আরো একদিন অতিরিক্ত শুনানির জন্য চেয়ে নেন। সেই শুনানির দিন আজ ধার্য্য হয়েছে। এই প্রসঙ্গে মামলাকারীদের মধ্যে অন্যতম সুবীর সাহার সঙ্গে টেলিফোনে প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার তরফে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মামলা-মোকদ্দমা নিয়ে আমার বিশেষ অভিজ্ঞতা নেই, কিন্তু গত দেড় বছর ধরে এই ডিএ মামলা নিয়ে লড়াই করার পর আমার ধারণা হয়েছে বিচারপতিদের ‘অবজারভেশন’ মূল রায়ের ক্ষেত্রে অনেকটাই প্রভাব ফেলে। এতদিনের শুনানির পরিপ্রেক্ষিতে কোনোদিনই মনে হয় নি আদালত রাজ্য সরকারি কর্মীদের দাবি অন্যায্য বলে মনে করেছেন। সুতরাং, শুনানি সমাপ্ত হলে সরকারি কর্মচারীদের পক্ষে মানবিক রায়ই মাননীয় বিচারপতিরা দেবেন বলে মনে করি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!