এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > বিজেপিকে রুখতে উত্তরবঙ্গে বামফ্রন্টে বড় ভাঙন ধরিয়ে তৃণমূলে যোগ

বিজেপিকে রুখতে উত্তরবঙ্গে বামফ্রন্টে বড় ভাঙন ধরিয়ে তৃণমূলে যোগ

ইসলামপুরে সিপিএম গোষ্ঠী এখন বিভাজনের মুখে। মাটিকুন্ডার লোকাল সিপিএম সদস্যরা দলবদলে এখন তৃণমূলে মুখাপেক্ষী হতে চলেছে। এই সকল কারণে সমগ্র এলাকা জুড়ে নিশ্চিহ্ন হতে চলেছে সিপিএম। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে সিপিএমের এই বিপর্যয়ে রাজনৈতিক মহলে সমালোচনার সুর তুঙ্গে। সিপিএমের পাল্টা দাবি, মাটিকুন্ডার তিন জন নেতাকে অনেক আগেই দল থেকে বার করে দিয়েছেন তাঁরা।
মাটিকুণ্ডা লোকাল কমিটির প্রাক্তন সিপিএমের সম্পাদক ইউসুফ আলি বলেন, বতর্মান রাজনৈতিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে খুব সহজেই বলা যায় যে রাজ্য বিজেপিকে আটকানোর ক্ষমতা এখন সিপিএমের নেই। তাদের রুখতে গেলে তৃণমূল কংগ্রেসের শক্তি বৃদ্ধি করার প্রয়োজন আছে। পাঁচ দশক ধরে দলীয় রাজনীতি করার পর নিজের হাতে গড়া দলই এখন নতুন দলের দিকে আকৃষ্ট হচ্ছে। মনোনীত কোনো সদস্যকে ধরে রাখা তো দূরে থাক নিচু তলার সাধারণ কর্মীদের নিরাপত্তাও এখন দিতে পারছে না সিপিএম। তাই আনুষ্ঠানিক ভাবে আগামী ২৭ ডিসেম্বর তিনি এবং লোকাল কমিটির সকল কর্মীরা তৃণমূলে যোগদান করবে। যোগদানের তালিকায় রয়েছেন তাহের আলম, ইমাজউদ্দিন, খোকা মালাকার ও বিন্দু সিনহা সহ অনেক নেতা কর্মীর নাম। সিপিএমের উত্তর দিনাজপুর জেলা সম্পাদক অপূর্ব পাল বলেন, ইউসুফ আলীদের অনেক আগেই সিপিএমের আদর্শের বিরোধী কাজ করবার জন্য দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছিল। তাঁরা কোন দলে যোগ দেবেন সেটা তাঁদের ব্যাপার। ইসলামপুরের কংগ্রেস বিধায়ক (পরে তৃণমূলে যোগ দেন) কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন, আগামী ২৭ ডিসেম্বর সিপিএমের অনেক সদস্য একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তৃণমূলে যোগ দান করবেন। পঞ্চায়েত ভোটের আগে এই কর্মসূচি তৃণমূলের দলের ওজন বাড়াবে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!