এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > বিদ্রোহীদের বাগে আনতে বড় পদক্ষেপের পথে রাজ্য বামফ্রন্ট, বাড়ছে জল্পনা

বিদ্রোহীদের বাগে আনতে বড় পদক্ষেপের পথে রাজ্য বামফ্রন্ট, বাড়ছে জল্পনা

Priyo Bandhu Media

একেই এরাজ্যে বামেদের সংগঠনে ধস নামতে শুরু হয়েছে। তার ওপর দলেরই কিছু বিদ্রোহীদের বাড়বাড়ন্ত প্রবল অস্বস্তিতে পড়তে হয়েছে বামফ্রন্টকে। গত 31 জুলাই রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্রের উপস্থিতিতে এই বিদ্রোহী নেতাদের চাপে রাখতে পশ্চিম বর্ধমান জেলা সিপিএম সম্পাদক গৌরাঙ্গ চট্টোপাধ্যায় একঁই তদন্ত কমিটি গঠনের কথা ঘোষনা করেন।

যেই কমিটিতে রুনু দত্ত, বিবেক চৌধুরী, অলোক চট্টোপাধ্যায়, বীরেশ্বর মন্ডল সহ বেশ কয়েকজন নেতা রয়েছেন। জানা যায়, এই কমিটি তিনভাগে বিভক্ত হয়ে একটি দল বেনাচিতি এলাকার কজন নেতার বিরুদ্ধে তদন্ত করবে, অন্যটি দুর্গাপুর ইস্পাত জোনের কজন নেতার বিরুদ্ধে তদন্ত চালাবে আর কদিন ধরেই দলের গোপন খবর সংবাদমাধ্যমে চলে যাওয়ায় দলের কারা এর পেছনে রয়েছে সে ব্যাপারেও তদন্ত করা হবে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

জানা যায়, কদিন আগে রাজ্য সম্পাদকের সামনেই জেলা সম্পাদক মন্ডলীতে ঠাই না পাওয়ায় দুর্গাপুরের কিছু সিপিএম নেতা বিদ্রোহ ঘোষনা করেন। আর সেই খবর সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হবার পরই দলের ভেতরের খবর কি করে বাইরে গেল তার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করে দল। অন্যদিকে পশ্চিম বর্ধমানের দুর্গাপুরের সাথে আসানসোলের নেতাদের বিবাদ বহুদিনের। দলেরই একাংশের অভিযোগ, আসানসোলে সংগঠন মজবুত না হলেও সেখানকার নেতাদের কথাতেই কমিটি হয়েছে।

দলের একাংশের মতে, একেই সিপিএমের ভঙ্গুর দশা। তার ওপর দুর্গাপুরের বিদ্রোহী নেতারা যদি এইভাবে দলের বিরুদ্ধেই মুখ খোলেন তবে ভবিষ্যতে বড় বিপদে পড়বে জেলা নেতৃত্ব। তাই আগেভাগেই তদন্ত কমিটি করে বিদ্রোহী নেতাদের মুখ বন্ধেরই কৌশল নিল সিপিএম নেতৃত্ব। কিন্তু এই তদন্ত কমিটির জুজুতে কর্মীরা আদৌ মুখ খোলা থেকে বিরত থাকবেন কি না তা নিয়ে আশঙ্কায় বাম নেতারা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!