এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > সিপিএম আমলের ‘ত্রাস’ কি এখন রং বদলালেন? অর্জুন সিংয়ের গড়ে গুলিকাণ্ডে নয়া মোড়

সিপিএম আমলের ‘ত্রাস’ কি এখন রং বদলালেন? অর্জুন সিংয়ের গড়ে গুলিকাণ্ডে নয়া মোড়

এবার ঝকঝকে দিনের আলোতে প্রকাশ্যে গুলিবিদ্ধ হতে হলো এক তৃণমূল কর্মীকে। সোমবার এই ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে টিটাগড়ের বি টি রোড এলাকায়। সূত্রের খবর তালপুকুর মুচি পাড়া এলাকায় বি টি রোডের কাছে একটি কালী পুজোর মণ্ডপ তৈরি হচ্ছিল। আর সেখানেই দাঁড়িয়ে ছিলেন স্থানীয় কাউন্সিলর মনিশ শুক্লা, তৃণমূল কর্মী সতীশ মিশ্র সহ বেশ কয়েকজন ব্যক্তি।

জানা যায় এই সময়ে হঠাত দুজন দুষ্কৃতী পায়ে হেঁটে এগিয়ে আসে তার পরেই আগ্নেয়াস্ত্র বের করে দুটি গুলি চালায় যার মধ্যে একটি গুলি লাগে তৃণমূল কর্মী সতীশ মিশ্রের গায়ে। সাথে সাথে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন সতীশ। এদিকে দুষ্কৃতীদের ধাওয়া করতে স্থানীয় কাউন্সিলর মনিশ শুক্লা সহ বেশ কয়েকজন এগিয়ে গেলেও ঘিঞ্জি এলাকার সুবাদে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। এদিকে এই ঘটনার পরই ব্রহ্মস্থান এলাকায় বিজেপির দলীয় অফিস ভাঙচুর চালানো হয়। কিন্তু ঠিক কে বা কারা এই গুলি চালাল?

আর এই গুলি চালানোর পেছনে তাদের উদ্দেশ্যই বা কি?একাংশের ধারণা, এককালে এই এলাকায় দাপটের সঙ্গে সিপিএম করা সকলের “ত্রাস” বলে পরিচিত ভোলা প্রসাদই এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত। যদিও বা ভোলা প্রসাদই যে এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত তা এখনও পর্যন্ত স্বীকার করেনি পুলিশ। এদিন এ প্রসঙ্গে ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের এক কর্তা বলেন, “কি কারণে হামলা তা এখনো পরিষ্কার নয়। আমরা ভোলা প্রসাদ, কালা মুন্নাকে গ্রেফতার করেছি। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।”

তবে সতীশ মিশ্র নয় দুষ্কৃতীদের লক্ষ্য ছিল তৃণমূল কাউন্সিলর মনির শুক্লাই বলে দাবি একাংশের। জানা গেছে এই মনি শুক্লা স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক অর্জুন সিংয়ের খুবই ঘনিষ্ঠ। তাহলে কি এর পেছনে কোনো রাজনৈতিক অভিসন্ধি রয়েছে? এদিন এ প্রসঙ্গে তৃণমূল বিধায়ক অর্জুন সিংহ বলেন, “আমাদের দলের কাউন্সিলার মনিশ শুক্লাকে কেন্দ্র করেই দুষ্কৃতীরা হামলা চালিয়েছিল। গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে আমাদেরই এক কর্মীর গায়ে লেগেছে। পুলিশকে অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে  প্রসঙ্গে 21 নম্বর ওয়ার্ডের সেই তৃণমূল কাউন্সিলর মনীশ শুক্লা বলেন, “সতীশ অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং ভালো সংগঠক তাই ওর উপর হামলা হয়েছে।” অন্য দিকে সতীশ মিশ্রর গায়ে গুলি লাগার পরই বিজেপির পার্টি অফিস ভাঙচুরের পেছনে পাল্টা তৃণমূলকেই কটাক্ষ করেছে গেরুয়া শিবির। শাসকদলের গোষ্ঠী কোন্দলই এই হামলার প্রধান কারণ বলে জানিয়েছেন বিজেপির ব্যারাকপুর জেলা সভাপতি অহীন্দ্র বসু। পাল্টা এর পেছনে যে কোনো গোষ্ঠীকোন্দলই নেই তা স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন তৃণমূলের টিটাগর পুরসভার চেয়ারম্যান প্রশান্ত চৌধুরী। সব মিলিয়ে এখন দিনে দুপুরে টিটাগরে তৃণমূল কর্মীকে গুলি করার ঘটনায় রাজনৈতিক যোগ নাকি ব্যক্তিগত শত্রুতা তা নিয়েই তদন্তে পুলিশ আধিকারিকরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!