এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মাত্র দুই মাসে ভারতে করোনা আক্রান্ত 100 থেকে বেড়ে 1 লক্ষ! আরও দুর্দিনের অপেক্ষায় দেশবাসী?

মাত্র দুই মাসে ভারতে করোনা আক্রান্ত 100 থেকে বেড়ে 1 লক্ষ! আরও দুর্দিনের অপেক্ষায় দেশবাসী?



যত দিন যাচ্ছে, ততই বাড়ছে ভারতবর্ষে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। মাত্র দুই মাসের মধ্যে এবার দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা 100 থেকে বেড়ে এক লক্ষ ছাড়িয়ে গেল। সূত্রের খবর, বেসরকারি সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, গত সপ্তাহ থেকে এখনও পর্যন্ত ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা 28 শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে অন্যান্য দেশে যত তাড়াতাড়ি করোনাতে মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন, ভারতবর্ষে তা অনেকটাই আটকানো গেছে বলে দাবি করছে বিভিন্ন মহল।

জানা গেছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে 25 দিনের মধ্যে 100 থেকে এক লক্ষে আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছে গেছে। স্পেনে 30 দিন, জার্মানিতে 35 দিন, আর ইতালীতে তা 36 দিন লিখেছে। ইতিমধ্যেই বিশ্বজুড়ে প্রায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা 45 লক্ষ। যেখানে একদম শীর্ষে রয়েছে আমেরিকা। অন্যদিকে ভারতে এই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে প্রতি এক লক্ষে 0.2। যেখানে বিশ্বের অন্যান্য দেশের দিকে তাকালে দেখা যাবে মৃত্যুর হার 4.1।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর সেদিক থেকে ভারত অনেকটাই সন্তোষজনক অবস্থায় রয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। আর ভারতের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নিরিখে সবথেকে শীর্ষে রয়েছে মহারাষ্ট্র। তারপরে তামিলনাডু, গুজরাট এবং চতুর্থ স্থানে রয়েছে দিল্লি। ইতিমধ্যেই করোনা ভাইরাস আটকাতে লকডাউনের পদ্ধতি অবলম্বন করেছে। তবে বর্তমানে সেই লকডাউনকে বিভিন্ন জায়গায় শিথিল করা হয়েছে।

এক্ষেত্রে আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে যে, আবার যেন করোনা ভাইরাস চূড়ান্ত আকার ধারণ না করে। যে সমস্ত জায়গায় একদম করোনা ভাইরাসের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না, সেই এলাকাগুলোকে গ্রীন জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। অন্যদিকে যেখানে করোনা ভাইরাসের বাড়বাড়ন্ত সেই এলাকাগুলোকে রেড জোন হিসেবে ঘোষণা করেছে সরকার। কিন্তু লকডাউন ধীরে ধীরে শিথিল করা হচ্ছে আর এই সময়টাই সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

কেননা লকডাউন শিথিলের ফলে সামাজিক দূরত্ব কতটা বজায় রাখা যাবে সেটা নিয়ে চিন্তা থেকেই যাচ্ছে। এর মধ্যে একদিনে রেকর্ড সংখ্যক বাড়ছে সংক্রান্তে। সব মিলিয়ে ভারতবর্ষ করোনা ভাইরাস নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করলেও, দুই মাসের মধ্যে যেভাবে 100 থেকে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এক লক্ষে বেরিয়ে গেছে, তাতে ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন সকলে। সকলের মনেই একটাই প্রশ্ন – সংখ্যা এক লাখে পৌঁছে যাওয়ার পর – কি এবার আরও জকাঠিন দিন দেখতে হবে ভারতবাসীকে। এখন পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, তার দিকেই নজর থাকবে প্রত্যেকের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!