এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরকর্মী নিয়োগ ঘিরেও শাসকদলের কাউন্সিলরদের মধ্যে তীব্র বাদানুবাদ, মেয়রের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে

পুরকর্মী নিয়োগ ঘিরেও শাসকদলের কাউন্সিলরদের মধ্যে তীব্র বাদানুবাদ, মেয়রের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে

Priyo Bandhu Media

এবার কর্মী নিয়োগ নিয়ে প্রবল হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়লেন শাসকদলের কাউন্সিলররা। গতকাল দুর্গাপুর পৌরসভার এই ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পরিস্থিতি। সূত্রের খবর, শাসকদল পরিচালিত এই দুর্গাপুর পুরসভার জল দপ্তরে 18 জন কর্মী নিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, এই কর্মীরা আগে পুরসভাতেই কাজ করতেন। কিন্তু মাঝে তাদের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। আর এখন ফের তাদের নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুরসভা। এদিকে এদিন কর্মী নিয়োগ হচ্ছে এই খবর পেয়ে বিভিন্ন কাউন্সিলররা এদিন পুরসভায় ভিড় জমাতে শুরু করেন। তাদের ওয়ার্ড থেকেই কর্মী নিতে হবে এই দাবিতে পুরসভার এক মেয়র পারিষদ সদস্য অপর মেয়র পারিষদ সদস্যের সাথে বচসায় জড়িয়ে পড়েন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই দুর্গাপুরে শাসকদলের দুটি গোষ্টী রয়েছে। আর এতে অনেক কাউন্সিলররাও জড়িয়ে পড়েছেন। আর তার ফলে কোন নেতা পুরসভাতে কর্মী নিয়োগে বেশি প্রাধান্য পাবেন তা নিয়েই শুরু হয়েছে দ্বন্দ্ব। এদিন এই প্রসঙ্গে এক বরো চেয়ারম্যান বলেন, “সব কাউন্সিলরের মতামত নিয়েই লোক নিয়োগ করতে হবে।”

অন্যদিকে সবকিছুই নিয়ম মেনেই করা হচ্ছে বলে জানান এই দুর্গাপুর পুরসভার জল দপ্তরের মেয়র পারিষদ পবিত্র চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু এই ভাবে কর্মী নিয়োগ নিয়ে দলের কাউন্সিলরদের মধ্য বিবাদ আদতে তো দলেরই ভাবমূর্তি খারাপ করবে!

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিন এই প্রসঙ্গে পশ্চিম বর্ধমান জেলার তৃণমূল সভাপতি ভি শিবদাসন দাসু বলেন, “পুরসভার মেয়র যা সিদ্ধান্ত নেবেন সেটাই হওয়া উচিৎ। কারও যদি কোনো অভিযোগ থাকে তাহলে সে দলকে জানাতে পারত। ঘটনাটি খোঁজ নিয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।” সব মিলিয়ে এবার জল দপ্তরের কর্মী নিয়োগ নিয়েও প্রবল বচসা বাধল শাসকদলের কাউন্সিলরদের মধ্যে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!