এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > করোনার হাত থেকে দ্রুত মুক্তি নেই! তাই এবার এই রাজ্যে লকডাউন তুলে দিতে চান মুখ্যমন্ত্রী!

করোনার হাত থেকে দ্রুত মুক্তি নেই! তাই এবার এই রাজ্যে লকডাউন তুলে দিতে চান মুখ্যমন্ত্রী!


এত তাড়াতাড়ি মুক্তি মিলবে না করোনা থাকে। এদিকে লক ডাউন এর ফলে থমকে আছে জনজীবন থেকে শুরু করে অর্থনীতি। সুতরাং কোরোনাকে নিয়েই বেঁচে থাকতে হবে , ফলে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে লকডাউন তুলে দেওয়ার পক্ষে সওয়াল করলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

দেশে ক্রমশ বেড়েই চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। লক ডাউন এর সুফল কি কিছু মিলছে? সেই কারণেই রবিবার সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘দিল্লি সরকার লকডাউন তুলতে তৈরি। তবে এমতাবস্থায় আমাদের করোনাকে সঙ্গে নিয়েই বাঁচতে হবে। দিল্লির কন্টেনমেন্ট জোন (Containment Zone) সিল রেখে বাকি দিল্লিকে গ্রিন করে দেওয়ারও জন্য কেন্দ্রকে দাবি জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিন তিনি দাবি করেন যে, ‘জোড়-বিজোড় নীতিতে এই রাজ্যে দোকান খোলা যেতে পারে। এমনকি লকডাউন পুরো তুলে নেওয়ার পরেও যদি কিছু সংক্রমণ হয়, তা ভালভাবে সামলাতে আমরা তৈরি।’ সাথেই কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন করেন যে, ‘মৃত্যুর সংখ্যা কমানোর লক্ষ্যে এখনও সফল দিল্লি। এখানে প্রচুর পরিমানে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। পরবর্তী করোনা পরিস্থিতি সামলাতে দিল্লি প্রস্তুত।বর্তমানে গণপরিবহণ বন্ধ থাকবে। কিন্তু প্রাইভেট দু’চাকা, চারচাকার গাড়ি চলতে পারে। দু’চাকার গাড়িতে একজন ও চারচাকার গাড়িতে দু’জনের বেশি থাকবেন না। বেসরকারি অফিসও খোলা যাবে। তবে ৩৩ শতাংশের বেশি কর্মচারী যেন একসঙ্গে না থাকেন সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এই বেসরকারি অফিসের মধ্যে আইটি সেক্টর ও ই-কমার্স সংস্থাগুলিকেও হিসেব করা হয়েছে। জরুরী পরিষেবাগুলিতে একশ শতাংশ উপস্থিতি রাখতেই হবে।’

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!