এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পঞ্চায়েত নির্বাচনে শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীদের নিরাপত্তা নিয়ে ঝড় তুলতে রাজ্য সমাবেশ

পঞ্চায়েত নির্বাচনে শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীদের নিরাপত্তা নিয়ে ঝড় তুলতে রাজ্য সমাবেশ

গত পঞ্চায়েত নির্বাচন থেকেই রাজ্যের নির্বাচনের কাজে অংশগ্রহণকারী ভোটকর্মীরা অর্থাৎ সরকারি কর্মচারী, শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীরা বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। এই নিয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের কাছে ছুটে যাওয়া থেকে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা – কোনো কিছু করতেই ছাড়েননি তাঁরা। কিন্তু তারপরেও নির্বাচন চলাকালীন প্রিসাইডিং অফিসার রাজকুমার রায়ের দুর্ভাগ্যজনক মৃত্যু হয়। যদিও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং এই ঘটনার পিছনে কোনো রাজনৈতিক যোগ দেখছেন না, কিন্তু রাজ্য সরকারি কর্মচারী ও শিক্ষকরা এই ঘটনা কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না। ইতিমধ্যেই ঘটনার সত্যতা উদ্ধারে সিবিআই তদন্তের দাবি উঠে গেছে।

আর এই সবের পরিপ্রেক্ষিতে আজ ভারত সভা হলে জাতীয়তাবাদী অধ্যাপক ও গবেষক সঙ্ঘ, বঙ্গীয় শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী সঙ্ঘ এবং বঙ্গীয় নবউন্মেষ প্রাথমিক শিক্ষক সঙ্ঘের পক্ষ থেকে নির্বাচনে কর্তব্যরত অধ্যাপক, শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীদের নিরাপত্তা প্রদান নিয়ে এক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সেই সম্মেলনে বারবার ঘুরে ফিরে আসে রাজকুমারবাবুর দুর্ভাগ্যজনক মৃত্যুর কথা। এই সম্মেলন থেকেই আজ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এবার থেকে প্রতি বছর ১৪ মে রাজকুমার রায় স্মারক বক্তৃতার আয়োজন করা হবে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সরকারি কর্মচারী পরিষদের আহ্বায়ক দেবাশিস শীল তীব্র ভাষায় রাজ্য সরকারকে আক্রমন করে বলেন, রাজকুমার রায়ের মৃত্যু কিছুতেই আত্মহত্যা হতে পারে না, কেননা সেদিন রাত্রেই তিনি তাঁর স্ত্রীর সাথে কথা বলেন আর তারপরেই হঠাৎ করে গায়েব হয়ে যান, তাঁর ফোন বন্ধ হয়ে যায়। আসলে রাজকুমার বাবুর মৃত্যু আত্মহত্যা বলে প্রমান করা গেলে রাজ্য সরকারকে তো আর ওই ২০ লক্ষ টাকা দিতে হবে না! সম্মেলনের অন্যতম আয়োজক জাতীয়তাবাদী অধ্যাপক ও গবেষক সঙ্ঘের কৃষ্ণ সরকার, বঙ্গীয় শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী সঙ্ঘের অরূপ সেনগুপ্ত ও গৌরাঙ্গ দাস, বঙ্গীয় নবউন্মেষ প্রাথমিক শিক্ষক সঙ্ঘের কানুপ্রিয় দাস ও রাম কুমার চট্টোপাধ্যায় সহ অন্যান্য শীর্ষস্থানীয় নেতৃত্ত্ব বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীদের নিরাপত্তা নিয়ে তীব্র উদ্বেগ প্রকাশ করেন এবং রাজকুমার রায়ের মৃত্যু-রহস্যের সত্য উদ্ঘাটনের জন্য সিবিআই তদন্তের দাবি করেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!