এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > নারদা-সারদা কি ধীরে ধীরে তৃণমূলকে ‘অন্তর্জলী যাত্রায়’ নিয়ে যাচ্ছে? জল্পনা বাড়ালেন হেভিওয়েট

নারদা-সারদা কি ধীরে ধীরে তৃণমূলকে ‘অন্তর্জলী যাত্রায়’ নিয়ে যাচ্ছে? জল্পনা বাড়ালেন হেভিওয়েট

নারদা তদন্তে আইপিএস এস এম এইচ মির্জার গ্রেপ্তারের ঘটনার পর থেকেই কার্যত বাংলার রাজনীতি সরগরম। প্রসঙ্গত, নারদ স্টিং অপারেশন প্রকাশিত হয় 2016 সালে। আর সেই অপারেশনের ভিডিও থেকেই দেখা যায় ঘুষ কাণ্ডে একের পর এক হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা থেকে শুরু করে আইপিএস অফিসার এস এম এইচ মির্জার নাম জড়িয়ে গেছে। প্রকাশিত ভিডিওতে রাজনৈতিক ব্যক্তিদের ছাড়া একমাত্র পুলিশ অফিসার এস এম এইচ মির্জাকে ঘুষ নিতে দেখা যায়।

আর সেই ঘটনায় জল্পনা বাড়িয়ে প্রথম গ্রেপ্তার হন পুলিশ অফিসার এস এম এইচ মির্জা। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজ্য রাজনীতিতে প্রায় প্রত্যেক বিরোধী দলই তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। এদিন বহরমপুর লোকসভায় কংগ্রেসের নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী এম এস এইচ মির্জার গ্রেপ্তারের ঘটনা প্রসঙ্গে নিজের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, নারদা ও সারদা কাণ্ড ধীরে ধীরে তৃণমূলকে অন্তর্জলী যাত্রার পথে নিয়ে যাচ্ছে! আর তারফলেই, রাজ্য রাজনীতিতে শুরু হয়েছে তীব্র জল্পনা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

কেননা, অধীরবাবু দীর্ঘদিনের রাজনীতিবিদ হওয়ার পাশাপাশি ঘোষিত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরোধী। তাঁকে এবারের লোকসভা নির্বাচনে হারানোর পাশাপাশি রাজনৈতিকভাবে ‘শেষ করার’ কম প্রচেষ্টা করে নি শাসকদল। কিন্তু, দাঁতে দাঁত চেপে মাটি কামড়ে পরে থেকে করে করে জিতে অধীর চৌধুরী প্রমান করে দিয়েছিলেন – বহরমপুরের আসল ‘বাদশা’ তিনিই। আর নির্বাচনের সেই যুদ্ধে জিতে তারপর থেকেই তিনি কোমর বেঁধে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে নেমেছেন।

ইতিমধ্যেই, তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে মেট্রো ডেয়ারির শেয়ার হস্তান্তরে কোনো ‘দুর্নীতি’ হয়েছে কিনা তা নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। সেই পরিস্থিতিতে অধীরবাবুর তৃণমূল সম্পর্কে ‘অন্তর্জলি যাত্রা’ মন্তব্য রাজ্য-রাজনীতিতে জল্পনা বাড়াচ্ছে! রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের প্রশ্ন, অধীরবাবু কি শুধুমাত্র তৃণমূল বিরোধিতার জায়গা থেকেই এহেন মন্তব্য করলেন? নাকি, তাঁর কাছে নির্দিষ্ট সূত্র থেকে খবর আছে যে এবার নারদ ও সারদা কাণ্ডে একাধিক হেভিওয়েট তৃণমূল নেতাকে জেলে যেতে হবে? এই প্রসঙ্গে অধীরবাবু কিছু স্পষ্ট না করায় – আপাতত তাঁর মন্তব্য ঘিরে তীব্র জল্পনা রাজ্য-রাজনীতিতে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!