এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > একদা রাজীব গান্ধীর ঘনিষ্ঠই বিজেপির হাতে বড় অস্ত্র তুলে দিলেন, শেষ দুই দফার আগে ব্যাকফুটে কংগ্রেস?

একদা রাজীব গান্ধীর ঘনিষ্ঠই বিজেপির হাতে বড় অস্ত্র তুলে দিলেন, শেষ দুই দফার আগে ব্যাকফুটে কংগ্রেস?

জমে উঠেছে রাজনীতির লড়াই – দেশের সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের আর মাত্র শেষ দুই দফার ভোটগ্রহণ বাকি। ফলে শেষ দুই রাউন্ডের আগে রাজনৈতিক উত্তেজনার পারদ ক্রমশ চড়ছে। আর এসবের মধ্যেই কংগ্রেসকে রীতিমত ব্যাকফুটে ঠেলে দিয়ে বিজেপির হাতে বড়সড় অস্ত্র তুলে দিলেন একদা রাজীব গান্ধীর ঘনিষ্ঠ স্যাম পিত্রোদা। ইন্দিরা গান্ধীর মৃত্যুর পর ১৯৮৪ সালে শিখেদের উপর যে হামলা নেমে এসেছিল – তা নিয়ে এতদিন পরেও কংগ্রেসকে বারবার অস্বস্তিতে পড়তে হয়। কিন্তু, নির্বিচারে শিখেদের উপরে সেই হামলার পিছনে কংগ্রেসের ‘হাত’ নিয়ে এখনো সোচ্চার বিরোধীরা।

বিরোধীদের, বিশেষ করে বিজেপির দাবি শিখদের উপর নির্বিচারে এই হামলার পিছনে রাজীব গান্ধীর নির্দেশ ছিল। যদিও কংগ্রেসের তরফে এই হামলার ঘটনায় ‘সমবেদনার’ কথা বারবার জানানো হয়েছে – কিন্তু বিরোধীদের প্রশ্ন শিখেদের উপর সেই নির্বিচারে হামলার জন্য, কেউ শাস্তি পেল না কেন? আর এর উত্তর দিতে গিয়ে ঘটনার ৩৫ বছর পরেও বারেবারে হোঁচট খেতে হয়েছে কংগ্রেসকে। আর এবার রাজীব গান্ধীর ঘনিষ্ঠ স্যাম পিত্রোদা বিজেপিকে আক্রমন করতে গিয়ে নিজের অফিসিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে ১৯৮৪-এর শিখ-বিরোধী দাঙ্গার মত ‘অতি স্পর্শকাতর’ বিষয়কে ‘হুয়া তো হুয়া’ (শিখেদের উপর আক্রমন হয়েছিল তো হয়েছিল!) বলায় কংগ্রেসের অস্বস্তি হাজার গুন বেড়ে গেল!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

যেখানে নির্বিচারে হাজার হাজার মানুষের প্রাণ গেছে, সেই ঘটনাকে এইভাবে লঘু করে দেখানোর চেষ্টার পরিপ্রেক্ষিতে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জানিয়েছেন, পিত্রোদার মন্তব্য তাঁর দলের মনোভাব ও দম্ভের পরিচয় দিয়েছে! অন্যদিকে বিজেপির অফিসিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেলে এই শিখ বিরোধী ডাঙায় অভিযুক্ত কংগ্রেস নেতাদের ছবি ও একটি ভিডিও (যে ভিডিওতে শোনা যাচ্ছে রাজীব গান্ধীর গলা – বড় কোনও গাছ পড়লে, মাটি তো কাঁপবেই!) দিয়ে লেখা হয়েছে, এই ভিডিও আপনার মনকে নাড়া দেবে, এখন আপনাকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে! এর পাশাপাশিই দিল্লিতে রাহুল গান্ধীর বাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন বিজেপি সমর্থকরা।

আর সামগ্রিক এই ঘটনায় রীতিমত রীতিমত বেকায়দায় কংগ্রেস। কেননা, আগামীকাল শিখ অধ্যুষিত হরিয়ানা ও দিল্লিতে ভোট। পরের রবিবার শেষ দফায় ভোট পাঞ্জাবে – আর তার আগে স্যাম পিত্রোদার এই বক্তব্য যে কতবড় ক্ষতি করতে পারে তা বুঝতে পেরেই তড়িঘড়ি ড্যামেজ কন্ট্রোলে নেমেছেন কংগ্রেস নেতারা। ইতিমধ্যেই স্যাম পিত্রোদাকে দিয়ে বলানো হয়েছে, তাঁর হিন্দি ‘তেমন ভালো নয়’, তাই শব্দের ‘অপব্যবহার’ হয়ে গেছে। কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরজওয়ালা আবার ‘হাত ঝেড়ে ফেলার মত’ এই বক্তব্যের দায় চাপিয়েছেন স্যাম পিত্রোদার উপরেই, এর সঙ্গে কংগ্রেসের কোনো সম্পর্ক নেই বলেও জানিয়েছেন। অন্যদিকে, পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী এই ঘটনায় বিজেপি ‘নোংরা-রাজনীতি’ দেখতে পাচ্ছেন। সবমিলিয়ে, শেষ দুদফার নির্বাচনের আগে কংগ্রেসের অস্বস্তি বহুগুন বাড়িয়ে দিলেন কংগ্রেস ঘনিষ্ঠ স্যাম পিত্রোদা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!