এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > জল্পনা সত্যি করে এবার সভাপতি পদ থেকে ইস্তফা হেভিওয়েট কংগ্রেস নেতার, অস্বস্তি নাকি নয়া চাল ,জল্পনা তুঙ্গে

জল্পনা সত্যি করে এবার সভাপতি পদ থেকে ইস্তফা হেভিওয়েট কংগ্রেস নেতার, অস্বস্তি নাকি নয়া চাল ,জল্পনা তুঙ্গে

জল্পনা চলছিল, এবার সেই জল্পনা সত্যি করে দিল্লির কংগ্রেস সভাপতির পদে ইস্তফা দিলেন অজয় মাকেন। জানা যাচ্ছে যে, বৃহস্পতিবার রাতে এই কংগ্রেস নেতা বর্তমান কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর কাছে নিজের ইস্তফাপত্র জমা দিয়েছেন আর সেই ইস্তফাপত্র রাহুল গান্ধী গ্রহণ ও করেছেন।

জানা যাচ্ছে যে, শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়েই তিনি ইস্তফা দিয়েছেন তবে কংগ্রেসের অন্দরে জল্পনা ছড়িয়েছে যে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে তিনি কংগ্রেসের টিকেটে লড়বেন তাই রাহুল গান্ধীর কথামতো ইস্তফা দিয়েছেন তিনি।

 

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, ২০১৫ তে দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে আম আদমি পার্টির কাছে বিরাট ব্যবধানে পরাজিত হয় কংগ্রেস। যার পর কংগ্রেসের হাত শক্ত করতে দিল্লি কংগ্রেসের সভাপতির পদে বসানো হয় অজয় মাকেনকে। তবে আপকে সমর্থন করা নিয়ে অখুশি ছিলেন তিনি। একাধিকবার কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে মতবিরোধ ও বেধেছে তাঁর এই নিয়ে। বরাবরই তিনি এর বিরোধিতা করে এসেছেন।

জানা যাচ্ছে যে,এদিন তিনি রাহুলগান্ধীর সঙ্গে বৈঠক করেন দীর্ঘক্ষণ আর তার পরেই ইস্তফাপত্র জমা দেন। এই নিয়ে তিনি টুইট করে নিজের ইস্তফার বিষয়টি স্পষ্ট করেন।

টুইটে এই কংগ্রেস নেতা লেখেন, ”২০১৫-র বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকে আমি দিল্লি কংগ্রেসের প্রধান হিসাবে কাজ করেছি। রাহুল গান্ধী, কংগ্রেস কর্মী ও সংবাদমাধ্যমের কাছ থেকে অনেক ভালবাসা ও সমর্থন পেয়েছি। আমি সত্যি কৃতজ্ঞ।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!