এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > একলা চলার লক্ষ্য নিয়ে বড়সড় পদক্ষেপ নিতে চলেছে কংগ্রেস

একলা চলার লক্ষ্য নিয়ে বড়সড় পদক্ষেপ নিতে চলেছে কংগ্রেস

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে এই রাজ্যে তাঁদের রাজনৈতিক সমীকরণ ঠিক কী হবে তা নিয়ে প্রথম থেকেই কংগ্রেস নেতৃত্বরা বড়ই অস্বস্তিতে পড়েছেন। কেননা রাজ্যে কংগ্রেসের প্রবল বিরোধী হিসেবে পরিচিত শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস সারাদেশে বিজেপি বিরোধিতায় কংগ্রেসের সাথেই বিরোধী মহাজোটের শামিল হয়েছে। তাই সেদিক থেকে রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে কংগ্রেস লড়লে জাতীয় রাজনীতিতে কংগ্রেসের সাথে তৃণমূল কতটা থাকবে তা নিয়ে ধন্দে পড়ে ছিলেন রাহুল গান্ধীরাও‌।

আর তাইতো গত 19 জানুয়ারি প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বের তরফে কলকাতায় তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশে কংগ্রেসের তরফে কোনও হাইকমান্ডকে না আসার জন্য অনুরোধ করা হলেও রাহুল গান্ধী “ধরি মাছ না ছুঁই পানির” মতো সেখানে কংগ্রেসের মল্লিকার্জুন খাড়গে এবং অভিষেক মনু সিংভিকে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। এর ফলে প্রবল অস্বস্তিতে পড়তে হয়েছিল রাজ্যের প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

কেননা প্রদেশ কংগ্রেসের অধীর চৌধুরী সোমেন মিত্র, আব্দুল মান্নানেরা বরাবরই তৃণমূল বিরোধী হিসেবে পরিচিত। তবে কংগ্রেসের হাইকমান্ডের পক্ষ থেকে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল গান্ধী অবশ্য প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বকে জানিয়ে দিয়েছিলেন যে, রাজ্যে তৃণমূলের বিরুদ্ধে তাঁদের রাজনৈতিক লড়াই চলবে। আর তাই শুক্রবার এই আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে কংগ্রেসের দলীয় রণনীতি কি হবে তা নিয়ে একটি বৈঠকে বসেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব।

সূত্রের খবর, এআইসিসির পর্যবেক্ষক গৌরব গগৈয়ের নেতৃত্বেই এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তবে এদিনের এই বৈঠকে দলীয় কর্মসূচি ও ব্যক্তিগত কাজের জন্য উপস্থিত ছিলেন না প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী, রাজ্যের বিধানসভার বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান, প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দীপা দাশমুন্সি ও মালদহের কংগ্রেস সাংসদ মৌসম বেনজির নূর। কিন্তু ঠিক কি আলোচনা হল এই বৈঠকে?

তাহলে কি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে এই রাজ্যে তৃণমূলের বিরুদ্ধেই লড়বে কংগ্রেস? নাকি বিগত বিধানসভা ভোটের মত তৃণমূল ও বিজেপি কে কাবু করতে বামেদের হাত ধরবে তাঁরা? এদিন এই প্রসঙ্গে বৈঠক শেষে গৌরব গগৈ বলেন, “প্রদেশ সভাপতি সহ আমরা সবাই একলা চলার পক্ষপাতী। কিন্তু আমরা অন্য মতামতও ভাবনা চিন্তায় রাখছি। মিটিংয়ের রিপোর্ট কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে জানাব।

এই বিষয়ে যা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার তা হাইকম্যান্ডই নেবে।” তবে রাজ্যের 42 টি লোকসভা আসনের 42 টিতেই যাতে প্রার্থী দেওয়া যায় সেই জন্য এদিনের বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে বলে খবর। সব মিলিয়ে এবার রাজ্যে একলা চলার জন্য বড়সড় উদ্যোগী হল প্রদেশ কংগ্রেস।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!